রোবসপিয়ের কে ছিলেন

ফরাসি বিপ্লবের অগ্নিময় পুরুষ হিসেবে ম্যাক্সিমিলিয়েন দ্য রোবসপিয়ের এর নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য| 1789 সালে জাতীয় সভায় প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে ইতিহাসের পাদ-প্রদীপের চলে আসেন| জ্যাকবিন দল স্থাপিত হলে তিনি এই দলের সদস্য হন|

রোবসপিয়ের
ফ্রান্সের মানচিত্র



রোবসপিয়েরের চরিত্র ও আদর্শ 

ব্যক্তিগত জীবনে রোবসপিয়ের ছিলেন প্রায় সন্ন্যাসীর মতো সৎ ও নিষ্ঠাবান ব্যক্তি| তার জীবনে অর্থ ও নারী ঘটিত কোন পাপের ছায়া পড়েনি| দার্শনিক রুশো রচনার দ্বারা তিনি গভীরভাবে প্রভাবিত হয়েছিলেন|রুশোর কাছ থেকেই তিনি জনগণের সার্বভৌম ক্ষমতার আদর্শে দীক্ষিত হন| 

তিনি মনে করতেন যে, জাতির সমস্ত সমষ্টিগত ইচ্ছা হল সকল প্রশ্নের উর্দ্ধে| জনসাধারণের দরিদ্র যে সামাজিক অসাম্যের ফল, রুশোর এই মতবাদকে তিনি বিশ্বাস করতেন| প্রাপ্ত বয়স্কের ভোটাধিকার স্থাপন ও প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি সক্রিয় আন্দোলন করেন| বিপ্লবী বিরোধী শক্তিকে ধ্বংস করার জন্য জনতাকে ক্রোধ ও হিংসা প্রকাশে তিনি প্ররোচনা করেন| 

রোবসপিয়ার এর মতে, যখন জনতা অত্যাচারিত হয়, তখন জনতাকেই তার প্রতিকার করতে হয়| যখন স্বৈরাচার চলে তখনই জনতার উচিত বিদ্রোহ করা| 



সন্ত্রাসের শাসন ও রোবসপিয়ের

1793 সালে 21 শে জানুয়ারি ষোড়শ লুই এর প্রাণদণ্ডের পর ফ্রান্সের অভ্যন্তরীণ ও পররাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রে এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির উদ্ভব হয়| একদিকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের স্বৈরাচারী রাজন্যবর্গ শক্তিজোট গঠন করে ফ্রান্স আক্রমণের প্রস্তুতি শুরু করে|

অন্যদিকে দেশের অভ্যন্তরে রাজতন্ত্রের সমর্থনে প্রতিবিপ্লবী শক্তিগুলি মাথাচাড়া দিয়ে উঠে| ফ্রান্সের 83টি প্রদেশের মধ্যে 60টিতে রাজতন্ত্রের সমর্থকরা বিদ্রোহ করে| এই সময় দেশের অভ্যন্তরে চরম খাদ্যভাব ও নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধির দরুন সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে ওঠে| জাতীয় জীবনে এই সংকটময় পরিস্থিতিতে বিপ্লবী নেতৃবৃন্দ উপলব্ধি করেন যে, জনগণকে শাস্তি দিয়ে বিপ্লবী সরকারের প্রতি অনুগত রেখে তবেই শিশু প্রজাতন্ত্রকে রক্ষা করা এবং বিদেশি শত্রুর মোকাবেলা করা সম্ভব হবে| এরপর ফ্রান্সের যে ত্রাসের শাসন শুরু হয়, তা "সন্ত্রাসের শাসন" বা "Region of Terror" নামে পরিচিত| এই সন্ত্রাসের শাসন প্রবর্তনের ও পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে নেন ম্যাক্সিমিলিয়েন দ্য রোবসপিয়ের| মোটামুটিভাবে এর স্থায়িত্বকাল ছিল  5ই সেপ্টেম্বর 1793 থেকে 27শে জুলাই 1794 সাল পর্যন্ত|

রোবসপিয়ের
গিলোটিন

রোবসপিয়ের
গিলোটিন


ফরাসি বিপ্লবের ইতিহাসে এই 13 মাসের এই সন্ত্রাসের শাসনকাল ছিল এক রক্তাক্ত অধ্যায়| বিপ্লবী নেতৃবর্গ এই রক্ত পিপাসায় মেতে ওঠেন| বিপ্লবের নামে প্রায় 20 হাজার নর-নারীকে হত্যা করা হয়| এই কালপর্বে যারা প্রাণ দেন, তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন- রানী আঁতোয়ানেৎ, মাদাম রঁলা, ব্রিসো, ভার্নিয়ে, ডিউক অব অর্লিয়েন্স(ষোড়শ লুই এর ভ্রাতা) প্রমুখ| বিপ্লবী নেতা ও জ্যাকোবিন দলের সদস্য হির্বাট ও ডাল্টন অবিরাম রক্তপাতের বিরুদ্ধে মতামত ব্যক্ত করতে থাকলে 1794 এর মার্চ ও এপ্রিলে রোবসপিয়ার নির্দেশে হত্যা করা হয়| এই হত্যাকাণ্ডের ফলে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়| এরফলে জ্যাকোবিন দলের আতঙ্কিত সদস্যরা প্রতি-বিপ্লবীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে রোবসপিয়েরকে বন্দি করে(1794 সালে 21শে জুলাই) এবং পরের দিন তাকে হত্যা করা হয়| এই ঘটনা থার্মিডোরীয় প্রতিক্রিয়া নামে পরিচিত| রোবসপিয়েরের মৃত্যুতে সন্ত্রাসের শাসনের অবসান ঘটে|


মূল্যায়ন

রোবসপিয়ের সম্পর্কে ঐতিহাসিক মহলে নানা অভিমত প্রচলিত আছে| অনেকে তাকে পরম মানবতাবাদী, সামাজিক ন্যায় বিচারের প্রবক্তা, এমনকি ফরাসি বিপ্লবের নায়ক বলে অভিহিত করেছেন| আবার অনেকে তাকে ঘোর স্বার্থপর, উচ্চ বিলাসী, অসৎ ও ষড়যন্ত্রকারী বলে অভিহিত করেছেন| ঐতিহাসিক লর্ড অ্যাক্টন তাকে ম্যাকিয়াভেলির দুষ্টনীতির জঘন্যতম দৃষ্টান্ত বলে অভিহিত করেছেন|

যাইহোক চারিত্রিক ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকা সত্ত্বেও রোবসপিয়েরের কৃতিত্বকে অস্বীকার করা যায় না| বিপ্লবের মহান আদর্শগুলি তার মাধ্যমেই বিকশিত হতে দেখা যায়| তার সংস্কারগুলি সামাজিক সাম্যের ভিত্তি মজবুত করেছিল|



তথ্যসূত্র

  1. অধ্যাপক গোপালকৃষ্ণ পাহাড়ি, "ইউরোপের ইতিবৃত্ত"
  2. Georges Lefebvre, "The French Revolution".
  3. Hilaire Belloc, "The French Revolution".

সম্পর্কিত বিষয়

সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................

    Need Help..?

    Ask Questions - (click here)

    Mock Test

    Visit our Mock Test Episodes - (click here)

    Share this post with your friends

    Like and support our Facebook page
    Previous
    Next Post »