দ্বিমেরুকরণ বলতে কি বুঝায়

1940 এর দশকের সূচনায় ফ্যাসিবাদ শক্তির ভারসাম্যের ক্ষেত্রে যে সমস্যা তৈরি হয়েছিল, তার একটি সমাধান পাওয়া গিয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির পরাজয়ের ফলে|

কিন্তু রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক কাঠামোর প্রতিষ্ঠা পশ্চিমী পুঁজিবাদের দুনিয়ায় যে আতঙ্ক ছড়িয়ে ছিল, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর তা সামান্যটুকুও কমেনি বরং বেড়ে গিয়েছিলো| 

এই সময় পশ্চিমী পুঁজিবাদী দুনিয়ায় সমাজতন্ত্রের আগ্রাসনের অস্থির হয়ে পড়েছিল, রাশিয়াও তেমনি তার মার্কসীয় রাষ্ট্র কাঠামোর নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিল এবং স্নায়ুর চাপ অনুভব করেছিল| এই কারণে সেই সময় সমগ্র বিশ্ব ব্যবস্থায় কূটনীতির দুই মেরুতে দ্বিখন্ডিত হয়ে যায়, যা দ্বিমেরুকরণ বা দ্বিপাক্ষিক রাজনীতি নামে পরিচিত|

দ্বিমেরুকরণ
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ

দ্বিমেরুকরণ
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ

দ্বিমেরুকরণ
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ


এই দ্বি-মেরুকরণ এর প্রধান বৈশিষ্ট্য ছিল, বলয় প্রতিযোগিতা| এই বলয় প্রতিযোগিতার অস্ত্রহীন দাম্ভিক প্রকাশ পরিচিত হয় ঠান্ডা লড়াই (Cold War) নামে| মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির উপদেষ্টা জর্জ কেন্নান সোভিয়েত বিরোধে ভৌগোলিক সম্প্রসারণের নীতি গ্রহণ করেন|

এর ফলে শুরু হয় দুই পক্ষের মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ বা ঠান্ডা লড়াই| এই পক্ষের ক্ষমতার দ্বন্দ্বের অনিবার্য ফল হলো, আমেরিকার তরফে ইউরোপের বেশিরভাগ জায়গার উপর প্রাধান্য বিস্তার করতে থাকে, যাকে Americanization বলা যেতে পারে| আর পূর্ব ইউরোপের রাশিয়ার প্রভাব বিস্তার করতে থাকে, যাকে Sovietization বলা হয়|

ঠান্ডা লড়াই এর পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ট্রুম্যান, ডকট্রিন ও মার্শাল প্ল্যান দ্বারা অর্থনৈতিক প্রাচীর গড়ে তোলেন এবং ন্যাটো(NATO) এর দ্বারা তার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা করেন|

সোভিয়েত আতঙ্কে পশ্চিম ও মধ্য ইউরোপে ন্যাটো যে একটি সোভিয়েত বিরোধী শক্তির জোট হিসেবে গড়ে উঠেছিল তাতে কোন সন্দেহ নেই| এই জোট কাঠামোকে আরো শক্তিশালী করে তুলেছিল দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় চুক্তি সংস্থা বা সিয়াটো চুক্তি(SEATO)|



তথ্যসূত্র

  1. Pavneet Singh, "International Relations".
  2. Prakash Chandra, "international relations & comparative politics".
  3. Garrett W Brown, "The Concise Oxford Dictionary of Politics and International Relations ".

সম্পর্কিত বিষয়

  1. ওপেক কি ? | What is OPEC ? (আরো পড়ুন)
  2. সার্কের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য (আরো পড়ুন)
  3. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে জার্মানির বিভাজন তথা বিশ্ব রাজনীতিতে তার প্রভাব  (আরো পড়ুন)
  4. ইতালিতে ফ্যাসিবাদের উত্থানের কারণ  (আরো পড়ুন)
সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................


    Previous Post Next Post

    মক টেস্ট

    ভিজিট করুন আমাদের মক টেস্ট গুলিতে- Click Here

    সাহায্যের প্রয়োজন ?

    প্রশ্ন করুন- Click Here

    ফেসবুকের মাধ্যমে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

    our Facebook page- Click Here

    Our Facebook Group- Click Here

    ইমেইলের মাধ্যমে ইতিহাস সম্পর্কিত নতুন আপডেটগুলি পান(please check your Gmail box after subscribe)

    নতুন আপডেট গুলির জন্য নিজের ইমেইলের ঠিকানা লিখুন:

    Delivered by FeedBurner