জ্যোতির্বিদ্যায় জয় সিং এর ভূমিকা

জ্যোতির্বিদ্যা অষ্টাদশ শতকে ভারতবর্ষে চরম শিখরে আরোহণ করেছিল| জ্যোতির্বিদ্যা উন্নয়নে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন জয়পুরের মহারাজা জয় সিং| তিনি ছিলেন একজন রাজনীতিবিদ এবং বিশেষজ্ঞ জ্যোতির্বিদ| তিনি তার সমকালীন বহু জ্যোতির্বিদের পৃষ্ঠপোষকতা করেছিলেন| তার পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া বিশাল পর্যবেক্ষণমূলক স্তম্ভ নির্মাণ করা সম্ভব হত না|

জ্যোতির্বিদ্যায়-জয়-সিং-এর-ভূমিকা
ভারতের মানচিত্র


জয় সিং ছিলেন একজন বিখ্যাত জ্যোতির্বিদ| তিনি 1688 খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন এবং এই সময় থেকেই মোগল সাম্রাজ্যের পতন শুরু হয়েছিল| তিনি মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেবের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে পেরেছিলেন|

তিনি 13 বছর বয়সে অম্বরের শাসনকর্তা নিযুক্ত হন| 1760 খ্রিস্টাব্দে আওরঙ্গজেবের মৃত্যুর পর মুঘল সাম্রাজ্যে তীব্র সংকট ঘনীভূত হয়| শেষ পর্যন্ত মোহাম্মদ শাহ 1719 খ্রিস্টাব্দে সিংহাসনে বসেন| এরপর তিনি 20 বছর সিংহাসনে অধিষ্ঠিত থাকেন|

এই সংকটজনক রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে জয় সিং কেবলমাত্র তার রাজনৈতিক অবস্থা সুদৃঢ় ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন তা নয়, তিনি একজন জ্যোতির্বিদ এবং স্থপতি হিসেবে নিজের কৃতিত্বের প্রমাণ রেখেছেন| 1727 খ্রিস্টাব্দে জয় সিং জয়পুরের নতুন নকশা ও পরিকল্পনা নির্মাণ করেন| মারাঠা ব্রাহ্মণ পণ্ডিত জগন্নাথ, যিনি ছিলেন একাধারে সংস্কৃত এবং আরবি ভাষায় পণ্ডিত তাকে গুরুর পদে নিযুক্ত করেন|

জয় সিং নাসিরুদ্দিন, গুরগানি, জামসিদ কাশি এবং উলুগ বেগ রচনা সংস্কৃতিতে অনুবাদ করার নির্দেশ দেন| তিনি ইউরোপ থেকে দূরবীক্ষণ যন্ত্র নিয়ে আসেন| তিনি জ্যোতির্বিদ্যায় বিভিন্ন উপকরণের ব্যবহার জানতেন এবং জ্যোতির্বিদ্যায় দক্ষ হওয়ায় তিনি তারা মণ্ডলীয় অবস্থান সম্পর্কে ভ্রান্তি নির্দিষ্ট করতে পারতেন|

1728 খ্রিস্টাব্দে দিল্লিতে প্রথম "যন্তর মন্তর" নির্মিত হয়েছিল| 1738 খ্রিস্টাব্দে জয় সিং "জিজ মোহাম্মদ শাহী" নাম দিয়ে প্রথম তার নিরীক্ষণের তালিকা প্রদান করেন| যন্তর মন্তরের সংস্কৃত মানে হলো উপকরণ এবং উপকরণ এবং সূত্র| এই বিশাল যন্ত্র নির্মাণের ক্ষেত্রে জয় সিং পন্ডিত বিদ্যাধর ভট্টাচার্যের সহযোগিতা গ্রহণ করেন|


জয় সিং দিল্লি, উজ্জয়নী, বেনারস, জয়পুর এবং মথুরাতে 1722-1739 খ্রিস্টাব্দের মধ্যে পাঁচটি বৃহদাকারে নিরীক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করেন| এই কেন্দ্রগুলি থেকে অসংখ্য যন্ত্রের সাহায্যে বিভিন্ন নিরীক্ষণ চালানো হতো এবং তা লিপিবদ্ধ রাখা হতো|

জয় সিং এর পাঁচটি নিরীক্ষণ কেন্দ্রের মধ্যে দিল্লি এবং জয়পুরের কেন্দ্র দুটি অবিকৃত অবস্থায় টিকে আছে, অন্যগুলি ধ্বংসের মুখে| দিল্লি এবং জয়পুরের নিরীক্ষণ কেন্দ্রগুলিতে তিনটি বিশাল আকার যন্ত্র আছে, যেগুলি ছিল সম্পূর্ণভাবে জয় সিং এবং তার জ্যোতির্বিদদের নির্মাণ| এগুলি হলো-
  1. সম্রাট যাত্রা বা  Samrat yantra
  2. রামযাত্রা বা Rama Yantra
  3. জয় প্রকাশ বা Jaya Prakasa

সম্রাট যাত্রা বা Samrat yantra

সম্রাট যাত্রা ছিল বিশাল 90 ডিগ্রি কোণে রক্ষিত| এটি স্থানীয় অক্ষরেখার সঙ্গে সমান্তরাল কোণে ঝুঁকে ছিল এবং এটি পৃথিবীর নিরক্ষরেখা সমান্তরাল ছিল| এটি নিখুঁতভাবে সময় নির্ধারণ করত| এটি থেকে সূর্যের অবস্থান ও সূর্যের গ্রহণ সম্পর্কে জানা যেত এবং সূর্যের বার্ষিক গতিবিধি লিপিবদ্ধ করা হতো|


রামযাত্রা বা Rama Yantra

রাম যাত্রা ছিল একটি লম্বা স্তম্ব| এটি দিগন্ত রেখা বা আকাশের শীর্ষবিন্দুর ভেতর দিয়ে কল্পিত চাপ দিগন্তকে পরিমাপ কত|


জয় প্রকাশ বা Jaya Prakasa

এটি ছিল সম্পূর্ণ ভাবে দেশীয় ও জয় সিং এর সৃষ্টি| জয় প্রকাশ ছিল একটি বিশেষ উত্তল গামলাকৃতি| এর দ্বারা ঘড়ির কাটার সাথে সামঞ্জস্য রেখে মহাকাশ ছায়াপথ অবস্থান নির্ণয় করা যেত|

জয় সিং এর প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল এই সকল নিরীক্ষণ কেন্দ্রগুলির মাধ্যমে সূর্যের গতিবিধি নজর নজর রাখা|তিনি বারবার সৌর বছরের হিসাব করেন| জয় সিং এর মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল,  এই সকল নিরীক্ষণ কেন্দ্রগুলির মাধ্যমে পর্যবেক্ষণের ওপর নির্ভর করে জ্যোতির্বিদ্যার বিষয়ক টেবিল তৈরি করা, হিসাব অথবা অনুমানের উপর নির্ভর করে নয়| জয়সিং বিখ্যাত জ্যোতির্বিদগণকে রাজসভায় আমন্ত্রণ জানাতেন এবং তাদের সাথে উক্ত বিষয়ে আলোচনা করতেন|

জয় সিং এর আমলে ভারতীয় এবং ইউরোপীয় জ্যোতির্বিদদের মধ্যে জ্যোতির্বিদ্যা বিষয়ে জ্ঞানের আদান-প্রদান ঘটত ভারতবর্ষে ব্রিটিশ উপনিবেশিক শাসনের পূর্বে| তিনি ইউরোপীয় জ্যোতির্বিদ্যা বিষয়ে যথেষ্ট আগ্রহ ছিল| সর্বশেষে আমরা এই কথা বলতে পারি যে, জ্যোতির্বিজ্ঞানে জয় সিং এর এক উল্লেখযোগ্য এবং অসামান্য অবদান রয়েছে, তা আমরা কখনোই অস্বীকার করতে পারি|



তথ্যসূত্র

  1. Anisha Shekhar Mukherji, "Jantar Mantar, Maharaja Sawai Jai Singh’s Observatory in Delhi"
  2. H.L. Showers, "The Jaipur Observetories Jantar-Mantar"
  3. Vipul Jain, "Jantar Mantar - Astronomical Observatory of Jaipur"

সম্পর্কিত বিষয়

সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
              ......................................................


নবীনতর পূর্বতন
👉 Join Our Whatsapp Group- Click here 🙋‍♂️

    
  
  
    👉 Join our Facebook Group- Click here 🙋‍♂️
  


  

   
  
  
    👉 Like our Facebook Page- Click here 🙋‍♂️

    👉 অনলাইনে মক টেস্ট দিন- Click here 📝📖 

👉 আজকের দিনের ইতিহাস - Click here 🌐 🙋‍♂️

    
  
           

 Join Telegram... Family Members
  
     
                
                






টেলিগ্রামে যোগ দিন ... পরিবারের সদস্য









নীচের ভিডিওটি ক্লিক করে জেনে নিন আমাদের ওয়েবসাইটটির ইতিহাস সম্পর্কিত পরিসেবাগুলি


পরিক্ষা দেন

ভিজিট করুন আমাদের মক টেস্ট গুলিতে এবং নিজেকে সরকারি চাকরির জন্য প্রস্তুত করুন- Click Here

আমাদের প্রয়োজনীয় পরিসেবা ?

Click Here