1707 থেকে 1740 সালের মধ্যে মুঘল রাজ দরবারে বিভিন্ন দলগুলির উন্নতি এবং তাদের রাজনীতি

মুঘল শাসনতান্ত্রিক সংগঠন এবং সাম্রাজ্যের স্থায়িত্ব অনেকটাই নির্ভর করত সম্রাটের ব্যক্তিগত দক্ষতার উপর| আকবর থেকে আওরঙ্গজেব পর্যন্ত মুঘল সম্রাটরা দক্ষতা ও ব্যক্তিত্বের সাহায্যে সাম্রাজ্যের ঐক্য টিকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন|

তবে আওরঙ্গজেব এর রাজত্বকালের অন্তিম লগ্নে সাম্রাজ্যে সাংগঠনিক দিকগুলো ক্রমে ক্রমে স্পষ্ট হয়ে উঠেছিল| আওরঙ্গজেবের মৃত্যুর পর তাঁর দুর্বল উত্তরাধিকারী পক্ষে এই দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি, ফলে মুঘল সাম্রাজ্যের পতন অবশ্যম্ভাবী হয়ে পড়েছিল|

1707 থেকে 1740 সালের মধ্যে মুঘল রাজ দরবারে বিভিন্ন দলগুলির উন্নতি এবং তাদের রাজনীতি

 মুঘল সাম্রাজ্যের মানচিত্র

Author- Santosh.mbahrm
Date- 26 September 2015
Source- wikipedia (check here)
License- GNU Free Documentation License



এই পতনকে অনেকটাই ত্বরান্বিত করে ছিল, মুঘল রাজ দরবারে অভিজাতদের মধ্যে তীব্র গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ও দলাদলি| সতীশ চন্দ্র ও আতাহার আলী দেখিয়েছেন যে, মুঘল দরবারে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকৃতপক্ষে জায়গিরদারি সম্পর্ককে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিল|

মনসবদারদের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং উৎকৃষ্ট জায়গির জন্য তাদের মধ্যে রেষারেষি মুঘল শাসক শ্রেণীর মধ্যে সুপ্ত বিভাজক শক্তিগুলিকে জাগিয়ে তুলেছিল| দরবারে সবথেকে প্রভাবশালী দলে সমর্থকদের মধ্যে উৎকৃষ্ট জায়গিরগুলি বন্টন হত| সব দলই চাইতো ওয়াজির বা মীর বক্সীর মতো গুরুত্বপূর্ণ পদগুলি উপরে নিজেদের প্রভাব বিস্তার করতে|

1707 থেকে 1740 সালের মধ্যে মুঘল রাজ দরবারে বিভিন্ন দলগুলির উন্নতি এবং তাদের রাজনীতি

যুদ্ধ পতাকা, সাম্রাজ্য সীল, জাতীয় পতাকা

Author- Santosh.mbahrm
Date- 26 September 2015
Source- wikipedia (check here)
License- GNU Free Documentation License



আওরঙ্গজেবের মৃত্যুর পর মুঘল অভিজাতরা প্রধানত তিনটি গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল, যথা- ইরানি, তুরানি, হিন্দুস্তানি| ইরানি দলের নেতা ছিলেন আসদ খান এবং তার পুত্র জুলফিকার খান| তুরানি দলের নেতা ছিলেন ফিরোজ জঙ্গ এবং তার পুত্র চিনকিলিস খান| হিন্দুস্তানি দলের নেতা ছিলেন আফগান নেত্রিবৃন্দ, সৈয়দ ভ্রাতৃবৃন্দ এবং খান-ই-দোরান এবং হিন্দু নেতৃবৃন্দ| সতীশ চন্দ্র বলেছেন, দলগুলি জাতি ও ধর্মের ভিত্তিতে গঠিত হয়নি, দলগুলির মূল ভিত্তি ছিল পাস্পরিক সম্পর্কে, ব্যক্তিগত বন্ধুত্ব এবং সর্বোপরি স্বার্থবোধ|


আওরঙ্গজেবের মৃত্যুর পর উত্তরাধিকারী সংক্রান্ত গৃহযুদ্ধের সময় মুনিম খান দ্বিতীয় বাহাদুর শাহকে যথেষ্ট সাহায্য করেছিলেন| দিল্লির সিংহাসনে বসার পর বাহাদুর শাহ আসদ খানের স্থানে মুনিম খানকে ওয়াজির পদে নিযুক্ত করেন| আসদ খানকে লাহোর ও দিল্লির সুবেদার পদে নিযুক্ত করা হয় এবং চিনকিলিস খানকে সাত হাজারি মনসবদারি পদে নিযুক্ত করা হয়| ফিরোজ জঙ্গ গুজরাটে শাসনকর্তা হিসেবে নিযুক্ত হন| এই অবস্থায় তুরানি গোষ্ঠী বিভিন্ন রাজনীতি থেকে নিজেদের সরিয়ে নেই|

1711 খ্রিস্টাব্দে মুনিম খানের মৃত্যু হলে ওয়াজির পদ দখলের লড়াই নতুন করে আরম্ভ হয়| প্রধান দাবিদার জুলফিকার খানের বিরোধী ছিল শাহজাদা আজিজ-উস-খান| 1712 খ্রিস্টাব্দে বাহাদুর শাহের মৃত্যুর পর তার অপর তিন পুত্রদের জুলফিকার আজিজ উস খানের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করেন| আজিজ-উস-খান নিহত হওয়ার পর জুলফিকার খান জাহান্দর শাহকে সিংহাসনে বসলেন এবং তিনি নিজে ওয়াজির পদের দায়িত্ব নেন এবং জুলফিকার খান প্রকৃত শাসকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন|

1707 থেকে 1740 সালের মধ্যে মুঘল রাজ দরবারে বিভিন্ন দলগুলির উন্নতি এবং তাদের রাজনীতি


জাহান্দর শাহের আমলে মুঘল দরবারে গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব তীব্র রূপ ধারণ করে| ওয়াজিরকে সরানোর জন্য জাহান্দর শাহ গোপন ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নেই| এই কাজে তিনি সঙ্গী হিসাবে পান মীর বক্সী, কোকলাতাস ও তার অনুগামীদের| সতীশ চন্দ্র বলেছেন, এর ফলে এক দূষিত আবহাওয়ার সৃষ্টি হয়েছিল এবং এর প্রভাব প্রত্যেকটি বিভাগে পড়েছিল| এই অবস্থায় 1713 খ্রিস্টাব্দে ফারুকসিয়া জাহান্দর শাহকে পরাস্ত করে দিল্লির সিংহাসনে বসেন| ফারুকসিয়া তার সাহায্যকারী সৈয়দ ভ্রাতৃদ্বয় অর্থাৎ সৈয়দ আব্দুল খাকে ওয়াজির এবং সৈয়দ হুসেন আলীকে মীর বক্সী বলে বসানো হয়| এর ফলে দরবারে হিন্দুস্তানি গোষ্ঠীর প্রভাব বৃদ্ধি পায়|


সৈয়দ ভ্রাতৃদ্বয় তুরানি গোষ্ঠীর নেতাদের সন্তুষ্ট রাখতে চেয়েছিলেন, কিন্তু প্রথম থেকেই ফারুকসিয়া তাদের তাদের সম্পর্কে তিক্ত হয়ে উঠে| ফারুকশিয়ার দুই প্রিয় পাত্র মীর জুমলা ও খান-ই-দোরানের শহীদ সৈয়দ ভ্রাতৃদ্বয়ের বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত হন| তাই ঐতিহাসিক সতীশ চন্দ্র লিখেছেন যে, "এই সময়ের ইতিহাস ছিল ফারুকসিয়া ও সৈয়দ ভ্রাতৃদ্বয় ক্ষমতার একটানা সংকটের ইতিহাস"| কিন্তু শেষ পর্যন্ত ইরানি, তুরানি ও অভিজাত গোষ্ঠী সৈয়দ ভ্রাতৃদ্বয়ের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে ওঠে|


তথ্যসূত্র

  1. সতীশ চন্দ্র, "মধ্যযুগে ভারত"
  2. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "অষ্টাদশ শতকের মুঘল সংকট ও আধুনিক ইতিহাস চিন্তা"
  3. অনিরুদ্ধ রায়, "মুঘল সাম্রাজ্যের উত্থান-পতনের ইতিহাস"
  4. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "পলাশী থেকে পার্টিশন"

    সম্পর্কিত বিষয়

    সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|

                  ......................................................

    Note: This is an email link for any questions: Send Mail.

    Your Reaction ?

    Previous
    Next Post »

    আপনার মতামত শেয়ার করুন ConversionConversion EmoticonEmoticon

    Top popular posts