১৮৫৮ সালের ভারত শাসন আইন

মহাবিদ্রোহের ফলে ভারতে কেবল মাত্র কোম্পানির অবসান হয়নি, ভারতের শাসন ব্যবস্থায় বেশ কিছু মৌলিক পরিবর্তন ঘটে| ১৮৫৮ সালে যে আইন দ্বারা ভারতের ব্রিটিশ পার্লামেন্ট কর্তৃক স্থাপিত হয়, তা ছিল ভারতের উন্নত ধরনের শাসন প্রবর্তনের আইন| (Act for the better government in India)

১৮৫৮-সালের-ভারত-শাসন-আইন
ব্রিটিশ পতাকা


এই আইনের দ্বারা ভারতের শাসনের ব্যাপারে ভারতের সচিব সর্বসেবা হয়ে উঠেন| আইনগত তিনি পার্লামেন্টের কাছে দায় থাকলেও ব্রিটিশ পার্লামেন্ট ভারত সম্পর্কে উদাসীন ছিল| কিন্তু এই আইনের দ্বারা বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন ঘটে, সেগুলো হলো-
  1. আইন পরিষদে ভারতীয়দের গ্রহণ|
  2. রাজস্ব বিভাজন |
  3. স্থানীয় স্বায়ত্ত শাসন প্রবর্তন|
  4. ভারতে ব্রিটিশ পুজির অনুপ্রবেশের ব্যাপকতা|
  5. সামরিক বিভাগের পরিবর্তন|
  6. মহাবিদ্রোহের পরবর্তীকালে সরকারি নীতি অবলম্বন| 
  7. সরকারি ও সমাজ সংস্কার নীতির ক্ষেত্রে উদাসীনতা প্রভৃতি|
১৮৫৮-সালের-ভারত-শাসন-আইন
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল


১৮৫৮ সালের ১লা নভেম্বর মহারানী ভিক্টোরিয়ার ঘোষণাপত্র মারফত ভারতের শাসনভার গ্রহণ করে এই ঘোষণাপত্র জারি করেন| এই ঘোষণাপত্রে বলা হয় যে- 
  1. ভারতবাসীর ধর্মীয় ও সামাজিক কোন ব্যাপারে কোম্পানি আর হস্তক্ষেপ করবে না| 
  2. প্রত্যেক ভারতবাসী ধর্মীয় স্বাধীনতা গ্রহণ করবে|
  3.  জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে যোগ্যতা সম্পূর্ন সকল ভারতবাসী সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত হতে পারবে|


এছাড়াও এই ঘোষণাপত্রে বলা হয় যে-
  1. স্বত্ববিলোপ নীতি পরিত্যাগ করতে হবে| 
  2. দেশীয় রাজাদের দত্তক গ্রহণের অধিকার দিতে হবে এবং বলা হয় যে, সরকার ভারতে আর সাম্রাজ্য বিস্তারে আগ্রহী নয়|
  3. দেশীয় রাজাদের বলা হয় যে, কোম্পানির সঙ্গে স্বাক্ষরিত তাদের সমস্ত চুক্তি ও সন্ধিগুলিকে মেনে চলতে হবে|
বলা বাহুল্য, এই সব প্রতিশ্রুতিগুলি শুধুমাত্র ঘোষণাপত্রে সীমাবদ্ধ ছিল| মহারানীর ঘোষণাপত্রে ভারতীয় ও ইউরোপীয়দের সমান আচরণ ও অধিকার দেওয়ার কথা বলা হয়, কিন্তু এই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা সম্ভব হয়নি| 

১৮৫৮-সালের-ভারত-শাসন-আইন
রানী ভিক্টোরিয়ার মূর্তি


জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে চাকরি ক্ষেত্রে বড় বড় কথা বলা হলেও উচ্চ পদগুলোতে ভারতবাসীদের সেভাবে সুযোগ দেওয়া হয়নি| ভারতবাসী যেন সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে না পারে, সেই জন্য ব্রিটিশ সরকার মহাবিদ্রোহের পরবর্তীকালে বিভেদ নীতি অবলম্বন করেন|

বিভিন্ন ধর্ম সম্প্রদায়ের জাতি গোষ্ঠী ও বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষকে পরস্পরের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ভাবাপন্ন করে তোলা হয়| শিক্ষিত ভারতীয়দের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ কোন সম্পর্ক স্থাপন না করে, ব্রিটিশ সরকার ভারতীয় রাজা-মহারাজা, জমিদার, ভূস্বামী প্রভৃতিদের সঙ্গে বন্ধুত্ব সম্পর্ক তৈরি করেন| 

এছাড়াও পরবর্তীকালে ভারতবাসীর সমাজ ও ধর্মীয় জীবন সম্পর্কে ব্রিটিশদের উদাসীনতা দেখা দেয়| তবে এই উদাসীনতা তারা সর্বদাই বজায় রাখতে পারেনি|

পরিশেষে বলা যায়, ১৮৫৮ সালের আইন বা মহারানীর ঘোষণাপত্রে উল্লেখিত প্রতিশ্রুতিগুলি মুহূর্তের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল| এই সব প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের ফলে, ভারতীয়দের মনে শাসক সম্প্রদায় বিরুদ্ধে হতাশা ও ঘৃণা সঞ্চার হয় এবং ভারতীয়দের মধ্যে জাতীয়তাবাদী(আরো পড়ুন) চেতনা সঞ্চারিত করেছিল|


তথ্যসূত্র

  1. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "পলাশী থেকে পার্টিশন"
  2. William Golden Lumley, "The New Sanitary Laws".
  3. Bipan Chandra, "India's Struggle for Independence: 1857-1947".

সম্পর্কিত বিষয়

  1. জাতীয়তাবাদ বলতে কি বুঝায় (আরো পড়ুন)
  2. বাজার অর্থনীতি কি (আরো পড়ুন)
সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................

    Ask questions :

    :

    --Click here:--

    Mock Test

    Visit our Mock Test Episodes - (click here)

    Share this post with your friends

    please like the Facebook Page and support us

    Need help..? send message privately.
    Previous
    Next Post »