ঋক বৈদিক যুগে গো-ধন এর গুরুত্ব

কৃষি ব্যবস্থা প্রচলিত থাকলেও ঋক বৈদিক যুগ ছিল মূলত পশুপালন ভিত্তিক এবং অর্থনীতির উপর প্রতিষ্ঠিত`| স্বাভাবিকভাবে গাভী, বলদ বা ষাঁড় ছিল তাদের মূল্যবান পশু সম্পদ বা অর্থনৈতিক দিক থেকে প্রধান অবলম্বন| গো সম্পদ বৃদ্ধির জন্য আর্যদের প্রার্থনার কথাও ঋকবেদে বারবার উল্লেখ করেছেন|
গো-সম্পদ
গরু

গো সম্পদের মধ্যে গাভী প্রতি মানুষের শ্রদ্ধা ছিল গভীর| ঋগবেদে বহুবার গো হত্যা নিষিদ্ধকরণে ইঙ্গিত পাওয়া যায়| তবে গরু শুধু খাদ্যের উৎস হিসেবে নয়, ব্যক্তিগত সম্পত্তির পরিমাণ ছিল গরু| 

ঋক বৈদিক যুগে যার কাছে যত বেশি গরু থাকত, সে ততই সম্পদশালী বলে বিবেচিত হতো| ঐতিহাসিক রোমিলা থাপার এর মতে, "আর্য জাতি যখন ভারতে আসে, তখন পশুপালন প্রধান জীবিকা হিসাবে গ্রহণ করা হয়েছিল"|


তথ্যসূত্র

  1. সুনীল চট্টোপাধ্যায় "প্রাচীন ভারতের ইতিহাস"
  2. Upinder Singh, "A History of Ancient and Early Medieval India: From the Stone Age to the 12th Century".

সম্পর্কিত বিষয়

  1. ঋক বৈদিক যুগ এবং পরবর্তী বৈদিক যুগের ধর্মীয় ভাবনা (আরো পড়ুন)
  2. বৈদিক এবং ঋক বৈদিক যুগে প্রশাসনিক ব্যবস্থা (আরো পড়ুন)
  3. প্রাচীন ভারতীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য  (আরো পড়ুন)
সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................

    Note: Email me for any questions:

    :-Click here:-.

    Note:- please share your feedback:

    :--Click here:--.

    Your Reaction ?

    Share this post with your friends

    please like the FB page and support us

    Previous
    Next Post »

    Top popular posts