পেশাদারি ইতিহাস বলতে কি বুঝায় ? অপেশাদারি ইতিহাসের সঙ্গে পেশাদারি ইতিহাসের পার্থক্য কি

অতীতের সব ঘটনাকেই ইতিহাস বলা চলে না। আর. জে. কলিংউড খোদ অতীত বা তার সম্পর্কে ঐতিহাসিকদের খোদ চিন্তার কোনটাই ইতিহাস দর্শনে বিবেচ্য নয়। বরং তার আলোচনার বিষয় হল পারস্পরিক সম্পর্ক যুক্ত অবস্থায় এই দুটি বিষয়। 

ইতিহাস কেবল কতগুলি নীতির সমষ্টি নয়, ইতিহাস হলো প্রগতির কাহিনী। এই প্রগতি রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সংস্কৃতির সকল বিষয় অনুসন্ধান করাই হলো ঐতিহাসিকদের কাজ, আর এই প্রেক্ষিতে গড়ে উঠেছে পেশাদারী ও অপেশাদারী ইতিহাস। 

পেশাদারি ইতিহাস বলতে কি বুঝায় ? অপেশাদারি ইতিহাসের সঙ্গে পেশাদারি ইতিহাসের পার্থক্য কি


📖 পেশাদারি ইতিহাস 

পেশাদারি শাখা বলতে ইতিহাসে সেই দিকের কথা বোঝায় যেখানে অতীত ঘটনার ভিত্তিতে আমরা অনেক কিছু জানতে পারি, যা বর্তমান সমস্যাকে বুঝতে সাহায্য করে এবং অতীতের ভুল-ত্রুটিকেগুলিকে সংশোধন এর সুযোগ করে দেয়।


👉পেশাদারী ইতিহাসের গুরুত্ব

পেশাদারি শাখা হিসেবে ইতিহাসের গুরুত্ব রয়েছে এগুলি হল-

  1.  ইতিহাস আমাদের অতীতকে জানতে ও বর্তমানকে বুঝতে সাহায্য করে। 
  2. ইতিহাস আমাদের সামগ্রী জ্ঞান বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।
  3.  সাহিত্যচর্চাও ইতিহাসের মাধ্যমে সমৃদ্ধি হয়ে ওঠে। আবার একই সঙ্গে সাহিত্যিকের সৃষ্টি ঐতিহাসিকের ধারনাকে প্রভাবিত করতে পারে। 
  4. ইতিহাস ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মধ্যে যে পরিপূরক সম্পর্ক রয়েছে, তা বুঝতে পারা যায়। ইতিহাস চর্চার মাধ্যমের বিভিন্ন দেশের আচার, রীতিনীতি ও জীবনযাত্রার সঙ্গে পরিচিত লাভ করতে পারি।

📖 পেশাদারি ইতিহাসের সঙ্গে অপেশাদারী ইতিহাসের পার্থক্য

পেশাদারি ও অপেশাদারি ইতিহাস রচনার প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণ করলে উভয়ের মধ্যে আমরা কতগুলি পার্থক্য লক্ষ্য করে থাকি। যথা- 

👉 প্রথমতঃ পেশাদারি ইতিহাসে সমস্ত অতীত ঘটনাকে ইতিহাস হিসাবে মনে করে। এবং অপেশাদারি ঐতিহাসিকরা ইতিহাসকে বিজ্ঞান বলে মনে করেন। তাই তারা অতীতে সমস্ত ঘটনা বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে বিচার বিশ্লেষণে পক্ষপাতি।

👉দ্বিতীয়তঃ পেশাদারী ইতিহাস অনুযায়ী মধ্যযুগের অনুসারে মধ্যযুগের ইতিহাস ধর্ম শিক্ষাদানের উদ্দেশ্যে রচিত হয়েছিল। তাই কলিংউড ইতিহাসকে ঈশ্বরের রেখা নাটক বলে অভিহিত করেছেন। কিন্তু অপরদিকে অপেশাদারী ইতিহাস ধর্মীয় প্রভাব মুক্ত ইতিহাস রচনার পক্ষপাতি।

👉তৃতীয়তঃ পেশাদারী ঐতিহাসিকরা যে ইতিহাস রচনা করেছেন, তার উপাদান হিসাবে পুরান, রামায়ণ, মহাভারত, স্বৃতি কথা, বীরকাথা প্রভৃতির উপর নির্ভর করে। অপেশাদারী ক্ষেত্রে দেখা যায় যে ইতিহাস রচনার উপাদান হিসেবে তার উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। যেমন- শিলালিপি, মুদ্রা, দলিল প্রভৃতি।

👉চতুর্থতঃ পেশাদারি ইতিহাস ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক ঘটনা নির্বাচনের ক্ষেত্রে যে সতর্কতা অবলম্বন করা হয় তা অপেশাদারী ইতিহাস রচনার ক্ষেত্রে অধিক সর্তকতা অবলম্বন করা হয়।

👉 পঞ্চমত: প্রাচীনকালে বহু পেশাদারী ঐতিহাসিক মনে করতেন যে, ইতিহাস রচনার পিছনে রাজনৈতিক ও ভাবাদর্শগত প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। আবার অপেশাদারী ঐতিহাসিকরা ঐতিহাসিক ঘটনার পিছনে কার্যকারণ সম্পর্কে প্রভাব আছে।

📖পরিশেষে বলা যায় যে, উভয় ইতিহাসের মধ্যে কিছু পার্থক্য থাকলেও উভয়ের উদ্দেশ্য একটাই যে, অতীতের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলী গুলিকে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে একটি ত্রুটি পূর্ণ ইতিহাস পরিণত করা।


 

📖👉সম্পর্কিত বিষয়

    সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো। আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন।🌐
                   ..................................


      নবীনতর পূর্বতন
      👉 আমাদের অফিসিয়াল হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ- ক্লিক করুন 🙋‍♂️
      
          
        
        
          👉 আমাদের ফেসবুক গ্রুপ- ক্লিক করুন 🙋‍♂️
        
      
      
        
      
         
        
        
          👉 আমাদের ফেসবুক পেজ -ক্লিক করুন 🙋‍♂️
      
      
          👉 অনলাইনে মক টেস্ট দিন- ক্লিক করুন 📝📖 
      
      
      👉 আজকের দিনের ইতিহাস - ক্লিক করুন 🌐 🙋‍♂️
      
      
      
      
      👉 ইতিহাসের PDF বই 📖- ক্লিক করুন 🌐 🙋‍♂️
      
      
          
        
                 
      

      টেলিগ্রামে যোগ দিন ... পরিবারের সদস্য

      
      
      
           
                      
                      
      
      
      

      টেলিগ্রামে যোগ দিন ... পরিবারের সদস্য


       


       

      
      

      👉নীচের ভিডিওটি ক্লিক করে জেনে নিন আমাদের ওয়েবসাইটটির ইতিহাস সম্পর্কিত পরিসেবাগুলি 📽️

      
      
      

      👉 জেনে আপনি আমাদের প্রয়োজনীয় পরিসেবা 📖

      👉ক্লিক করুন 🌐