আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধের ফলাফল

ব্রিটিশ উপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে আমেরিকার 13টি উপনিবেশ 1776 খ্রিস্টাব্দে বিদ্রোহ ঘোষণা করে এবং 1781 খ্রিস্টাব্দে আমেরিকার লোকেরা এই যুদ্ধে জয়লাভ করে| 1783 খ্রিস্টাব্দে 3 রা সেপ্টেম্বরে প্যারিস চুক্তির দ্বারা ইংরেজ সরকার আমেরিকার স্বাধীনতা স্বীকার করে নেই| এর ফলে আমেরিকা একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র রূপে আত্মপ্রকাশ করে এবং ইউরোপীয় রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণ করতে থাকে|

18 শতকের স্বৈরাচারী রাজতন্ত্র যুগে আমেরিকা প্রজাতান্ত্রিক যুক্তরাষ্ট্র হিসেবে গঠিত হয়| আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে জয়লাভ, রাজার ঈশ্বর প্রদত্ত ক্ষমতা এবং সমাজে যাজক ও অভিজাত শ্রেণীর সংক্রান্ত ধারণায় চরম আঘাত এনেছিল| আমেরিকাবাসীদের সাফল্য ইউরোপে সুদূর প্রসারি প্রভাব বিস্তার করেছিল| অধ্যাপক হেজ বলেন যে, "আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধ আমেরিকা তথা সমগ্র বিশ্বে গণতন্ত্রের পথ সুগম করেছিল"|

আমেরিকার-স্বাধীনতা-যুদ্ধের-ফলাফল
আমেরিকার মানচিত্র

আমেরিকার-স্বাধীনতা-যুদ্ধের-ফলাফল



এই স্বাধীনতা যুদ্ধের দ্বারা ইংল্যান্ড সর্বাধিক প্রভাবিত হয়েছিল| এই যুদ্ধে পরাজয়ের ফলে ইংল্যান্ডের সপ্তবর্ষব্যাপী যুদ্ধ জয়ের গৌরব ম্লান হয়ে যায় এবং তার আন্তর্জাতিক মর্যাদা দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়| আমেরিকা হাত ছাড়া হওয়ায় ইংল্যান্ডের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং কাঁচামাল আমদানি ও উৎপন্ন শিল্পপণ্য রপ্তানির প্রক্রিয়া নষ্ট হয়| এই ক্ষতিপূরণের জন্য ইংল্যান্ড নতুন উদ্যোমে ভারতে উপনিবেশ গড়ে তুলতে তৎপর হয়|

ইংল্যান্ডের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির উপর এই যুদ্ধের প্রভাব পড়েছিল| ইংল্যান্ডের শাসক টোরিদল ও লর্ড নর্থের মন্ত্রিসভা পদত্যাগে দিতে বাধ্য হয় এবং হুইগ দল ক্ষমতায় আসার ফলে ইংল্যান্ডের সাংবিধানিক ক্ষেত্রেও পরিবর্তন আসে| হুইগ দল মনে করে যে, রাজা দ্বিতীয় জর্জের হস্তক্ষেপের ফলেই যুদ্ধে ইংল্যান্ড ব্যর্থ হয়েছিল| তাই রাজার ব্যাক্তিগত শাসন ক্ষমতার পরিবর্তে পার্লামেন্টের দায়িত্বশীল মন্ত্রীরা শাসন প্রতিষ্ঠা করে| এই সময় থেকে রাজা সাংবিধানিক প্রধান হবে, তবে তিনি শাসন-কার্যে হস্তক্ষেপ করবে না|


যুদ্ধের পরাজয়ের ফলে ব্রিটিশ সরকার তার উপনিবেশিক নীতি পরিবর্তন করেন এবং মার্কেনটাইল মতবাদ(আরো পড়ুন) ত্যাগ করে সহিষ্ণুতার নীতি গ্রহণ করে| কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, আয়ারল্যান্ড ইত্যাদি শ্বেতাঙ্গ জাতির বসতিযুক্ত দেশগুলোকে স্বায়ত্ব শাসন দান করে|

এই স্বাধীনতা যুদ্ধে ফ্রান্সের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলে ছিল| ফ্রান্স সপ্তবর্ষব্যাপী যুদ্ধে পরাজয়ের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে উপনিবেশিকদের পক্ষ গ্রহণ করে এবং অর্থ, সেনাসহ নানাভাবে তাদের সাহায্য করে| এর ফলে ফ্রান্সের আর্থিক সংকট তীব্র হয়ে উঠে এবং ফরাসি রাজা ষোড়শ লুই পরিস্থিতির চাপে দীর্ঘদিন পর State General এর অধিবেশন ডাকতে বাধ্য হয়| এর ফলে শুরু হয় ফরাসি বিপ্লব| যুদ্ধে যোগদানকারী ফরাসি সেনারা স্বাধীনতার আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয় এবং ফ্রান্সের ফিরে এসে গণতান্ত্রিক ভাবধারা প্রচার করে, ফলে ফরাসি বিপ্লবের পথ তৈরি হয়|

আমেরিকার-স্বাধীনতা-যুদ্ধের-ফলাফল

      বিদ্রোহ

আমেরিকার-স্বাধীনতা-যুদ্ধের-ফলাফল
ইউরোপের মানচিত্র


স্পেন এই স্বাধীনতা যুদ্ধে সেনা দিয়ে মিনরকো ও ফ্লোরিডা পুনরুদ্ধারে সমর্থ হয়| হল্যান্ডের দেশপ্রেমিকরা নিজেদের দেশে রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে ব্যর্থ হলে বসবাসের জন্য আমেরিকায় চলে যায়|

জার্মানি, স্কটল্যান্ড ও আইল্যান্ডের বহু জাতীয়তাবাদী মানুষ নিজেদের দেশের স্বৈরাচারী রাজতান্ত্রিক শাসনের প্রতিবাদে আমেরিকায় গিয়ে বসবাস শুরু করে| আমেরিকার যুদ্ধের গণতান্ত্রিক আদর্শে উদ্বুদ্ধ পোল্যান্ডের রাজা তার পাঠ্য কক্ষে জর্জ ওয়াশিংটনের মূর্তি স্থাপন করেন, আবার হাঙ্গেরিতেও স্থাপিত হয় আমেরিকার আবাস|

এই স্বাধীনতা যুদ্ধের ইংল্যান্ড ও ফ্রান্সের মধ্যে সংঘর্ষে সুযোগ নিয়ে রাশিয়া ও অস্ট্রিয়া বলকান অঞ্চলে আগ্রাসী নীতি গ্রহণ করলে বলকান সমস্যার সৃষ্টি হয়|

এইভাবে আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধ এক নতুন ইউরোপের সৃষ্টি করেছিল|


তথ্যসূত্র

  1. John Ferling, "Whirlwind: The American Revolution and the War That Won It".
  2. John Ferling, "Independence: The Struggle to Set America Free".
  3. William Gordon, "The History of the Rise, Progress, and Establishment, of the Independence of the United States of America".

সম্পর্কিত বিষয়

সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................

    Note:- Please share your comment for this post :

    :

    --Click here:--

    .

    Share this post with your friends

    please like the FB page and support us

    Previous
    Next Post »

    Top popular posts