শিবাজীর সামরিক বাহিনী

ষোড়শ শতাব্দীতে মারাঠা শক্তির উত্থান ও অগ্রগতি মধ্যযুগীয় ভারতের ইতিহাসে এক উল্লেখযোগ্য অধ্যায়| এই মারাঠা শক্তির উত্থানের পশ্চাতে ছিল তাদের জাতীয়তা বোধ| এই মারাঠাদের ঐক্য সম্পূর্ণ হয়েছিল শিবাজীর মত এক বলিষ্ঠ নেতার নেতৃত্বাধীনে|

শিবাজী ছিলেন মহান যোদ্ধা ও সুশাসক| তিনি একাধারে ছিলেন সুদক্ষ সেনানায়ক, সুসংগঠিত ও মহারাষ্ট্র বীর|

শিবাজীর-সামরিক-বাহিনী
শিবাজীর মূর্তি


শিবাজী সামাজিক সংগঠন তার প্রতিভার অনন্য নিদর্শন| ভাগ্যান্বেষী সৈনিক হিসাবে জনাকীর্ণ ও উপত্যকা বহুল অঞ্চলে যুদ্ধ করার জন্য শিবাজী গেরিলা যুদ্ধ পদ্ধতির উপর জোর দেন|

এই কারণে তার সামরিক শক্তির ভিত্তি ছিল অশ্বারোহী বাহিনী| তার অশ্বারোহী বাহিনী দুই ভাগে বিভক্ত ছিল- বর্গী ও শিলাদার(আরো পড়ুন)| বর্গীরা ছিল স্থায়ী সরকারি সেনা ও শিলাদাররা ছিল অস্থায়ী ভাড়াটে সৈনিক|

শিবাজীর-সামরিক-বাহিনী
পদাতিক সেনা

শিবাজীর-সামরিক-বাহিনী
অশ্বারোহী সেনা


শিবাজী নিয়মিত অশ্বারোহী ও পদাতিক সেনাদের ক্রমোচ্চ স্তরে সংগঠিত করেন| 25 জন পাগা বা বর্গী অশ্বারোহীর দায়িত্বে থাকেন একজন হাবিলদার| পাঁচ জন হালদারের উপরে থাকতেন একজন জুমলাদার|

দশ জন জুমলাদারের দায়িত্বে থাকেন একজন হাজারী| পাঁচ জন হাজারী উপরে থাকেন এক পাঁচ হাজারী এবং সর্বোচ্চ ছিলেন সেনাপতি|

পদাতিক বাহিনীর সামরিক সংগঠনের সর্বনিম্ন পদ ছিল পাইক| নয় জন পাইকের উপরে থাকতেন একজন নায়েভ| শিবাজীর ব্যক্তিগত দেহরক্ষী বাহিনী দুই হাজার বাছায় করা সৈন্য দ্বারা গঠিত ছিল| সেনা নিয়োগের সময় শিবাজী ব্যক্তিগত দক্ষতা ও বিশ্বস্থতা উপর নজর দিতেন এবং নতুন নিয়োগের ক্ষেত্রে কর্মরত সৈন্যের সুপারিশকে গুরুত্ব দিতেন|

প্রিন্সেপ এর বর্ণনা থেকে জানা যায় যে, শিবাজী তার সেনা বাহিনীকে কঠোর নিয়ম শৃঙ্খলা ও ন্যায় পরায়নতা পরিচয় দিয়েছিলেন| প্রিন্সেপ লিখেছেন, মারাঠা সেনারা নির্বিচারে লুন্ঠন চালাতো এবং যা তারা বহন করতে পারত না তা পুড়িয়ে শেষ করে দিতো| সভাসদ বখর জানিয়েছেন যে, শিবাজীর নৌবাহিনীতে প্রায় চারশো জলযান ছিল| আবার অধ্যাপক যদুনাথ সরকার বলেছেন, নৌ বাহিনী ও নৌ ঘাঁটি নির্মাণে শিবাজীর আন্তরিকতার শ্রেষ্ঠ নিদর্শন|

অধ্যাপক যদুনাথ সরকার শিবাজীর শাসন সংগঠনকে মধ্যযুগের রাজনীতির বিস্ময়কর অভিহিত করে লিখেছেন, তার শাসন পদ্ধতি, সেনা সংগঠন সবই ছিল তার সক্রিয় উদ্ভাবন| তবে এই মূল্যায়ন সর্বাংশে সত্য নয়| শিবাজীর শাসন ব্যবস্থার দুর্বলতা ও সীমাবদ্ধতাগুলি মারাঠা রাজ্যের স্থায়িত্বের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল|

শিবাজী দায়িত্বশীল মন্ত্রিপরিষদ গঠনের কোন চেষ্টা করেনি| শিবাজীর অষ্টপ্রধানদের(আরো পড়ুন) অতিরিক্ত ক্ষমতা প্রদান করার ফলে তারা শক্তিশালী হয়ে উঠেছিল|

পরিশেষে এই কথা বলা যায় যে, শিবাজীর সামরিক বাহিনীতে উক্ত ত্রুটি থাকা সত্ত্বেও তার সামরিক প্রতিভা ও সাফল্য প্রশংসার দাবি রাখে|



তথ্যসূত্র

  1. সতীশ চন্দ্র, "মধ্যযুগে ভারত"
  2. অনিরুদ্ধ রায়, "মুঘল সাম্রাজ্যের উত্থান-পতনের ইতিহাস"
  3. Ranjit Desai, "Shivaji: The Great Maratha"

    সম্পর্কিত বিষয়

    সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                  ......................................................

    অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো

    ইউটিউব চ্যানেল

    ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সঙ্গে থাকুন- Click Here

    মক টেস্ট

    ভিজিট করুন আমাদের মক টেস্ট গুলিতে- Click Here

    ফেসবুকের মাধ্যমে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

    Click Here

    আমাদের সঙ্গে ফেসবুক গ্রুপে থাকুন

    Click Here

    সাহায্যের প্রয়োজন ?

    প্রশ্ন করুন- Click Here

    ইমেইলের মাধ্যমে ইতিহাস সম্পর্কিত নতুন আপডেটগুলি পান(please check your Gmail box after subscribe)

    নতুন আপডেট গুলির জন্য নিজের ইমেইলের ঠিকানা লিখুন:

    Delivered by FeedBurner