সপ্তদশ শতকের ভারত মহাসাগরের বাণিজ্য

ষোড়শ ও সপ্তদশ শতকে ভারতের বহির্বাণিজ্যের একটি বড় দিক হলো ভারত মহাসাগরের বাণিজ্য| এই বাণিজ্য গুজরাটের মুসলিম বণিকরা প্রভাব বিস্তার করেছিল এবং জাহাজের মালিকানা ছিল তাদের হাতে| মালাক্কা ছিল এশিয়ার বাণিজ্যের একটি বড় কেন্দ্র| বাংলা ও করমন্ডলের হিন্দু বণিকরা এখানে তাদের পণ্য নিয়ে হাজির হতেন, তবে জাহাজের মালিক ছিলেন মুসলিম বণিকরা|

ভারত-মহাসাগরের-বাণিজ্য
বানিজ্য জাহাজ



ভারতীয়রা মালাক্কা থেকে কিনতেন জায়ফল, চীনের রেশম, বাসনপত্র ইত্যাদি| চীনারা আবার এখান থেকে প্রচুর গোলমরিচ কিনত, যার প্রধান অংশ আসত মালাবার থেকে| ভারতীয় পণ্য আফিম, গন্ধ দ্রব্য, চন্দন কাঠ ও মূল্যবান পাথর চীনারা কিনতেন| দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ভারতীয় বণিকদের উপস্থিতি ছিল বেশ জোরালো|

পশ্চিম দিকে ভারতীয় বণিকদের বাণিজ্য ছিল লোহিত সাগর ও পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে| লোহিত সাগর হয়ে ভারতীয় পণ্য আলেকজান্দ্রিয়া ও কায়রো পৌঁছে যেত| আবার পারস্য উপসাগর হয়ে ভারতীয় পণ্য চলে যেত বাগদাদে| আরব ও ইয়েসেন শহর এবং আফ্রিকার পূর্ব উপকূলে ভারতীয়দের উপস্থিতি ছিল বিশেষভাবে লক্ষণীয়| ঐতিহাসিকগণ দেখিয়েছেন যে, ভারত মহাসাগরের বাণিজ্য ছিল বহু জাতি| হিন্দু বানিয়া, মুসলমান, ইহুদি সকলেই এই বাণিজ্য কেন্দ্রের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন|

ভারত থেকে রপ্তানি করা হতো চাল, ডাল, তেল, হলুদ, চিনি, কাঁচা রেশম প্রভৃতি| ভারত বিদেশ থেকে আমদানি করত সোনা, রুপা, পূর্ব আফ্রিকার ফল, ঔষধ প্রভৃতি| এটা ঠিক যে, সপ্তদশ শতাব্দীর ও অষ্টাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিক পর্যন্ত ভারত মহাসাগরের বাণিজ্য প্রধানত ভারতীয় জাহাজী বণিকদের হাতে ছিল| ইউরোপীয়রা এর মধ্যে প্রবেশ করার চেষ্টা করলেও সফল হয়নি| ভারতের জাহাজের মালিকরা তাদের সম্প্রদায়ের লোকদের নাবিক হিসাবে নিযুক্ত করতেন এবং জাহাজ পরিচালনায় তাদের খুব সুবিধা হত| 

ভারতীয় জাহাজের মালিকরা ও বণিকরা প্রায় সবাই ছিলেন মুসলমান| হিন্দু বণিকরা প্রধানত দেশের ভিতর থেকে মাল চালান দিতেন| ভারতীয় বণিকদের তিন ভাগে ভাগ করা যায়, যথা-
  1. প্রথমত, ধনী বণিক- যিনি নিজের পণ্য নিয়ে বিদেশে বাণিজ্য করতে যেতে| 
  2. দ্বিতীয়ত, ধনী বণিকদের প্রতিনিধিরা বিদেশে গিয়ে বাণিজ্য করতেন|
  3. তৃতীয়ত, ছোট মাঝারি বণিক যারা অল্প পণ্য নিয়ে বিভিন্ন বন্দরে বন্দরে ঘুরে বেড়াতেন|

ভারত-মহাসাগরের-বাণিজ্য
রেশম কাপড়


ভারত মহাসাগরের সঙ্গে যুক্ত বণিকদের অনেকে বন্দরের বণিক ও দালালের মাধ্যমে পণ্য সংগ্রহ করতেন| এছাড়া বন্দরের টাকশালের সোনা ও রুপার মুদ্রনের ব্যবস্থা ছিল| সুতরাং ভারত মহাসাগরের সঙ্গে তথা বাণিজ্যের সঙ্গে বহু শ্রেণীর মানুষ নিযুক্ত ছিল|শুধুমাত্র মূলধন থাকলে ভারতীয় মহাসাগরের বাণিজ্য করা যেত না, স্থানীয় সাহায্যের প্রয়োজন হতো| তবে সরকার বণিকদের সহচরাচর ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করত না| ভারত মহাসাগরের বাণিজ্যে অবশ্য ওঠা-নামা ছিল| হজের সময় পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চল এবং লোহিত সাগরে পণ্যের চাহিদা বেশি থাকত| রাজনৈতিক অশান্তি শুরু হলে ভারতীয় পণ্যের চাহিদা কমে যেত| ভারত মহাসাগরের পর্তুগিজ, ওলন্দাজ ও ইংরেজ বাণিজ্যের পরিমাণ তেমন বেশি ছিল না| ভারত মহাসাগরের বাণিজ্যের প্রাধান্য ছিল ভারতীয়দেরই|

সব দিক থেকে বিবেচনা করলে সপ্তদশ শতাব্দীর মুঘল ভারতের সামুদ্রিক বাণিজ্যের "স্বর্ণ যুগ" বলে ধরা যেতে পারে| কিন্তু এই যুগ বেশিদিন স্থায়ী হয়নি| মুসলিমদের পতন, পারস্যের অবক্ষয়, ইয়েনেমের গৃহযুদ্ধ প্রভৃতি কারণে ভারতীয় মহাসাগরের বাণিজ্য বেশি ক্ষতি হয়েছিল| যেখানে 1707 খ্রিস্টাব্দে জাহাজের সংখ্যা ছিল 112 টি, সেখানে 1750 খ্রিস্টাব্দে হয়ে দাঁড়ায় মাত্র 20 টি| মাদ্রাজ পূর্ব উপকূলের বড় বন্দর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং ইংরেজরা তাদের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রভাব বাড়িয়ে চলেছিল|



তথ্যসূত্র

  1. সতীশ চন্দ্র, "মধ্যযুগে ভারত"
  2. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "অষ্টাদশ শতকের মুঘল সংকট ও আধুনিক ইতিহাস চিন্তা"
  3. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "পলাশী থেকে পার্টিশন"
  4. Shireen Moosvi, "People, Taxation and Trade in Mughal India".

    সম্পর্কিত বিষয়

    সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|

                  ......................................................

    Note: Email me for any questions:

    :-Click here:-.

    Your Reaction ?

    Previous
    Next Post »

    আপনার মতামত শেয়ার করুন ConversionConversion EmoticonEmoticon

    Top popular posts