ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার ইতিহাস

1885 খ্রিস্টাব্দে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা ভারতীয় জাতীয়তাবাদ ও স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে এক যুগান্তকারী ঘটনা|

অধ্যাপক রমেশচন্দ্র মজুমদার বলেছেন, পৃথিবীর ইতিহাসে কোন যুগ বা দেশে এমন একটি দৃষ্টান্ত খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেখানে একটি রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান দীর্ঘ 60 বছরের বেশি সময় ধরে বিদেশি শাসনের হাত থেকে মাতৃভূমির স্বাধীনতা সংগ্রামের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে কাজ করেছে| তাই ভারতের জাতীয় কংগ্রেসকে কেন্দ্র করে এই সংগ্রাম বিবর্তিত বা আবর্তিত হয়েছে|

ভারতীয়-জাতীয়-কংগ্রেস
ব্রিটিশ পতাকা


জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তিকে কেন্দ্র করে ঐতিহাসিকদের মধ্যে বিতর্কের অন্ত নেই| জাতীয়তাবাদী ঐতিহাসিকগণ রমেশচন্দ্র মজুমদার, তারা চাঁদ ও অমলেশ ত্রিপাঠীর মতে, জাতীয় কংগ্রেস ছিল একটি সত্যিকারের জাতীয়তাবাদী সংগঠন, যার মধ্যে প্রতিফলন ঘটেছে ভারতীয় জনসাধারণের আশা-আকাঙ্ক্ষা|


ঐতিহাসিকরা বলেছেন, ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদী ছিল প্রকৃতপক্ষে জাতীয় কংগ্রেসের জন্ম দাতা| জনগণের মধ্যে অসন্তোষ সমানতালে বেড়ে চলেছিল| এই তীব্রতা কমানোর জন্য একটি নিরাপদ মৃদু শান্তিপূর্ণ ও নিয়মতান্ত্রিক নির্গমন পথ বা Safety valve জোগানই ছিল এর উদ্দেশ্য| সাম্প্রদায়িক কালে আবার জুডিথ ব্রাউন, অনিল শীল প্রমূখ কেমব্রিজ ঐতিহাসিকরা দেখানোর চেষ্টা করেছেন যে, উচ্চবর্গীয় শিক্ষিত ভারতীয়দের গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের ফলেই জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তি হয়েছিল|

যাইহোক জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তি আলোচনা করতে গিয়ে প্রথমে আমরা সংক্ষেপে যে বিষয়গুলি ভারতে জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক চেতনার সঞ্চার করেছিল, সেগুলি আলোচনা করবো| ঐতিহাসিক বিপান চন্দ্রের মতে, জাতীয়তাবাদ বিকাশের ক্ষেত্রে মুল প্রেরণা ছিল ভারতীয় ও ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের মধ্যে স্বার্থের সংঘাত| সমাজের সর্ব শ্রেণীর মানুষ ধীরে ধীরে উপলব্ধি করেছিলেন যে, তাদের সকলের স্বার্থ উপনিবেশিক শাসনে পদদলিত হচ্ছে|

ভারতীয়-জাতীয়-কংগ্রেস
কৃষক


কৃষক সম্প্রদায় ছিলেন ব্রিটিশ উপনিবেশিকতাবাদের প্রধান শিকার| ব্রিটিশ শাসনকালে কৃষকরা উপলব্ধি করেছিলেন যে, ব্রিটিশ ভূমি ব্যবস্থায় তাদের না আছে জমির মালিকানা না আছে ফসলের উপর অধিকার| শ্রমিক শ্রেণী লক্ষ্য করেছিলেন যে, ব্রিটিশ সরকার শুধুমাত্র শিল্পপতি ও ধনীদের কার্য রক্ষা করে চলেছে| তাই বুদ্ধিজীবী শিক্ষিত সম্প্রদায় উপলব্ধি করেছিলেন, ব্রিটিশরা প্রকৃতপক্ষে ভারতকে তার উপনিবেশিক অর্থনীতিতে পরিণত করছে|

এই নবজাত চেতনা থেকেই শিক্ষিত সম্প্রদায় রাজনৈতিক সমিতি গঠনের মাধ্যমে সমালোচনা করতে আরম্ভ করেন| কেমব্রিজ ঘরানার ঐতিহাসিক অনিল শীল কংগ্রেসের উৎপত্তি আলোচনা করতে গিয়ে দুটি political place এর কথা বলেছেন-
  1. political of the association 
  2. political of the union
অর্থাৎ অধ্যাপক অনিল শীল এর মতে সভা-সমিতির রাজনীতি পরবর্তীকালে জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তির ক্ষেত্র প্রস্তুত করেছিল|

পরবর্তীকালে বিভিন্ন সংগঠন যেমন- landholders society, British Indian Association, Pune Sarvajanik প্রভৃতি প্রতিষ্ঠিত হতে শুরু করে| অস্ত্র আইন, দেশীয় ভাষায় সংবাদ পত্রের আইন ও civil service পরীক্ষার বয়স কমানো প্রভৃতির বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলা হয়| এইভাবে সমিতিগুলি ভারতবর্ষে একটি সর্বভারতীয় রাজনৈতিক সংগঠনের পটভূমি রচনা করেছিল| বিভিন্ন অঞ্চলে নেতাদের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ, কলকাতায় 1883 খ্রিস্টাব্দে অনুষ্ঠিত International Exhibition, 1884 খ্রিস্টাব্দে লর্ড রিপনের বিদায়ী সভা অনুষ্ঠিত হতে থাকে| অবশেষে অবসর প্রাপ্ত ইংরেজ কর্মচারী হিউমের সহযোগিতায় এবং জাতীয় নেতাদের একান্ত আগ্রহে ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দুজন প্রতিনিধি 1885 খ্রিস্টাব্দে বোম্বাই শহরে এই মিলিত হলেন এবং সম্মেলনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভারতের জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্টিত হয়|

জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠায় হিউমের ভূমিকা নিয়ে ঐতিহাসিকদের মধ্যে মতভেদ আছে| রজনী পাম দত্ত বলেছেন, জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার পেছনে হিউমের উদ্দেশ্য ছিল একটি সেফটি বাল্ব তৈরি করা, যাতে ভারতীয়দের দীর্ঘদিনের অসন্তোষ ধামাচাপা দেওয়া যায়| কিন্তু সুমিত সরকারের মতো মহারথীরা মনে করেন, জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার বিষয়ে হিউমের ভূমিকাকে বাড়িয়ে দেখা যায়|

বিপান চন্দ্র মন্তব্য করেছেন, প্রকৃতপক্ষে জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার যেসব ভারতীয়রা অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন, তাঁরা ছিলেন এক নতুন সামরিক শক্তির প্রতিনিধি| হিউমের মতো রাজপুরুষের সহায়তা চেয়েছিলেন, কারণ তাদের ধারণা হয়েছিল প্রাক্তন রাজপুরুষের সংযোগে গড়ে ওঠা জাতীয় কংগ্রেস শুরুতেই সরকারি রোষে পড়বে না|



তথ্যসূত্র

  1. সুমিত সরকার, "আধুনিক ভারতের ইতিহাস"
  2. Rajiv Ahir I.P.S, "A Brief History Of Modern India".
  3. Sonali Bansal, "Modern Indian History".

সম্পর্কিত বিষয়

  1. ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস 1885 থেকে 1905 সাল পর্যন্ত (আরো পড়ুন)
  2. ভারত ছাড়ো আন্দোলনের পটভূমি (আরো পড়ুন)
  3. সম্পদের বহির্গমন তত্ত্ব এবং এটি কিভাবে বাংলার অর্থনীতিকে প্রভাবিত করেছিল  (আরো পড়ুন)
  4. ১৮৫৮ সালের ভারত শাসন আইন  (আরো পড়ুন)
সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................

    Note: Email me for any questions:

    :-Click here:-.

    Note:- please share your feedback:

    :--Click here:--.

    Your Reaction ?

    Share this post with your friends

    please like the FB page and support us

    Previous
    Next Post »

    Top popular posts