মহাবিদ্রোহের প্রকৃতি ও চরিত্র

1857 সালের মহাবিদ্রোহের প্রকৃতি নিয়ে ঐতিহাসিকদের মধ্যে মতভেদের অন্ত নেই| রিস এর মধ্যে লক্ষ্য করেছেন, ধর্মান্ধ হিন্দু-মুসলিম এর খ্রিস্ট ধর্ম বিরোধী জিহাদ| হোমস এর মতে, এটি ছিল সভ্যতার বনাম বর্বরতা সংঘাত| অনেকের মতে, এটি ছিল নিছক একটি সামরিক বিদ্রোহ| অনেকে আবার একে জাতীয় মুক্তির সংগ্রাম বলে অভিহিত করেছেন| আবার কেউ কেউ একে সামন্ততান্ত্রিক বিদ্রোহ বলে অভিহিত করেছেন|

মহাবিদ্রোহের-প্রকৃতি-ও-চরিত্র



সিপাহী বিদ্রোহ

স্যার জন লরেন্স, জন সিলি, চার্লস রেকস, চার্লস রবাটস প্রমূখ ইংরেজ ঐতিহাসিকের মতে, এই বিদ্রোহ একটি সামরিক বিদ্রোহ ছাড়া আর কিছুই ছিল না| সমকালীন ভারতীয় ঐতিহাসিকদের মধ্যে প্রায় সকলেই- অক্ষয়কুমার দত্ত, ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত, কিশোরী চাঁদ মিত্র, হরিশচন্দ্র মুখোপাধ্যায়, দাদাভাই নওরোজি, দুর্গাদাস বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ এই বিদ্রোহকে সিপাহী বিদ্রোহ হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন, তথা ভারতবাসী বিদ্রোহ নয় বলেছেন| দেশের কোন রাজনৈতিক সংগঠন এই বিদ্রোহ সমর্থন করেনি|

শিক্ষিত সম্প্রদায় বিদ্রোহের নিন্দা করেছেন| ভারতের ব্যাপক অঞ্চলের বিদ্রোহের কোন প্রভাব পড়েনি| দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল না| মূলত সিপাহীরাই প্রথম বিদ্রোহ ঘোষণা করে এবং পরে তাতে অন্যান্য শ্রেণীও কিছু কিছু অংশ নেয়| সিপাহিদের মধ্যেই মূলত এই বিদ্রোহ কেন্দ্রীভূত ছিল| তাই এই বিদ্রোহ পরিপূর্ণভাবেই সিপাহী বিদ্রোহ ছিল| তাই অনেকে তাই একে মহাবিদ্রোহ বা জাতীয় বিদ্রোহ বলা যায় না|



জাতীয় বিদ্রোহ 

ইংল্যান্ডের টোরি পার্টির নেতা ডিসরোলি এই বিদ্রোহকে জাতীয় বিদ্রোহ বলে অভিহিত করেছেন| সমকালীন ইংরেজ ঐতিহাসিক জে. বি. নটন, আলেকজান্ডার ডাফ, হোমস, জন কে প্রমূখ 1857 সালের বিদ্রোহকে জাতীয় বিদ্রোহ হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন|

মহাবিদ্রোহের-প্রকৃতি-ও-চরিত্র
কার্ল মার্কস


বিশিষ্ট মনীষী কার্ল মার্কস দ্ব্যর্থহীন ভাষায় একে জাতীয় বিদ্রোহ বলেছেন| এরা মনে করেন, ভারতীয় সিপাহীরা এই বিদ্রোহ শুরু করলেও পরবর্তীকালে তা আর নিছক সিপাহিদের বিদ্রোহ ছিল না| ভারতের জাতীয় জনমানসে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছিল এবং সর্বস্তরের ভারতবাসীর এই বিদ্রোহে অংশ নিয়েছিল, নয়তো সমর্থন জানিয়েছিল| ভারতের বিভিন্ন স্থানের জনসাধারণ বিশেষত অযোধ্যা ও বিহারের জনসাধারণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে এই বিদ্রোহে যোগদান করেন|

ঝাঁসির রানী লক্ষ্মীবাঈ, নানা সাহেব, কুনওয়ার সিং প্রমুখ রাজন্যবর্গ, তালুকদার ও জমিদার এই বিদ্রোহে যোগ দেন| বিদ্রোহীরা দিল্লির সম্রাট বাহাদুর শাহকে ভারতের সম্রাট বলে ঘোষণা করে ভারতে বিদেশী প্রভাব মুক্ত এক দেশীয় শাসন ব্যবস্থা স্থাপনের উদ্যোগী হয়| সুতরাং এই বিদ্রোহকে নিছক সিপাহী বিদ্রোহ বলা অযৌক্তিক|


পুনঃপ্রতিষ্ঠিত আন্দোলন

অধ্যাপক রমেশ চন্দ্র মজুমদার, বিশিষ্ট মার্কসবাদী চিন্তাবিদ রজনী পাম দত্ত, কেমব্রিজ ঐতিহাসিক এরিক স্টোকস প্রমূখ এই বিদ্রোহকে সামন্ত শ্রেণীর বিদ্রোহ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন| তাদের মতে এই বিদ্রোহ হল ভারতীয় সনাতনপন্থীদের শেষ বিদ্রোহ| অধ্যাপক মজুমদার এর মতে, এই বিদ্রোহ হলো ক্ষয়িষ্ণু অভিজাততন্ত্র ও মৃতপ্রায় সামন্ত শ্রেণীর মৃত্যুকালীন আর্তনাদ| তাঁর মতে এই বিদ্রোহ ছিল স্পষ্ট প্রতিক্রিয়াশীল|

ড. সুরেন্দ্রনাথ সেনের মতে, ইংরেজ শাসনের অধীনে দ্রুত পাশ্চাত্য সভ্যতার বিস্তারে দেশীয় জনসাধারণ ও সামন্তপ্রভুদের মনে এক ভীতির উদ্রেক হয়| প্রাচীন পন্থী এইসব সামন্তপ্রভুদের হাতেই ছিল বিদ্রোহের নেতৃত্ব| সিপাহীরা জয়যুক্ত হলে তারা নিশ্চয়ই পুরনো ভারতীয় সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ব্যবস্থার প্রবর্তন করে ভারতে এক প্রতি বিপ্লবের সূচনা করতেন|

মহাবিদ্রোহের-প্রকৃতি-ও-চরিত্র
ঝাঁসির রানী লক্ষ্মীবাঈ এর মূর্তি


এই বিদ্রোহ সিপাহীরা আরম্ভ করার পর সামন্ত শ্রেণীর একাংশ তাদের ক্ষোভ ও প্রতিহিংসার চরিতার্থ করার জন্য এই বিদ্রোহের নেতৃত্ব দেন| নানাসাহেব তার ভাতা বন্ধের জন্য, লক্ষ্মীবাঈ তার রাজ্যের অধিগ্রহণের জন্য বিদ্রোহের যোগ দেন| অযোধ্যার তালুকদাররাও একই কারণে যোগ দেয়| ফলে বিদ্রোহ সামন্ত বিদ্রোহে পরিণত হয়| এই বিদ্রোহে সাম্রাজ্যবাদী মনোভাব ছিল| এই বিদ্রোহের শুরুতে "code of administration" গঠিত হয়| এখানে আর্মি থেকে 6 জন, সিপাহী থেকে 4 জন মোট 10 জন মিলে এটি গঠিত হয়|



ষড়যন্ত্র বনাম সংগঠিত বিদ্রোহ 

ব্রিটিশ সরকার বলেছিলেন 1857 সালের বিদ্রোহ ছিল মুসলিমদের ষড়যন্ত্র| সৈয়দ আহমেদ খান এর বিরোধিতা করেন| কে. এম. আসরফ তিনি 1857 সালে সালের বিদ্রোহ ও ওয়াহাবী আন্দোলনের মধ্যে সম্পর্ক আছে কিনা খোঁজার চেষ্টা করেছিলেন এবং বলেন, এর মধ্যে পুনরুত্থানবাদী উপাদান ছিল| তিনি বলেছিলেন শহরের মৌলভীরা জেহাদ ও ফতোয়া ডিক্রিজারি করেছিলেন|

সেই সময় ওয়াহাবী নেতা ছিলেন জেনারেল ভকত খান| দিল্লি ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় ওয়াহাবী আন্দোলন সক্রিয় হয়ে ওঠে| ইফতার আলম খান সিপাহিদের সাংগঠনিক বিষয়ের উপর আলোকপাত করেছেন|


গণ বিদ্রোহ 

যদিও এই বিদ্রোহ প্রথমে সিপাহী বিদ্রোহ হিসাবে আরম্ভ হয়েছিল, কিন্তু পরে উত্তরপ্রদেশ ও বিহারে ব্যাপক অঞ্চলে এক গণ বিদ্রোহের চরিত্র ধারণ করে| কার্ল মার্কস "ভারতীয় বিদ্রোহ, ভারতীয় প্রশ্ন" প্রবন্ধে লিখেছেন যে, সিপাহীরা ছিল খন্ডমাত্র এবং মূলত কৃষকেরা ছিল 1857 সালের বিদ্রোহের প্রধান চালিকাশক্তি| মার্কসের মতে, 1857 সালের বিদ্রোহ ছিল ভারতের জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম| উনবিংশ শতাব্দীর প্রথম থেকেই বিভিন্ন স্থানে বিদ্রোহ ও গণ বিক্ষোভ সংগঠিত হয়|

মহাবিদ্রোহের-প্রকৃতি-ও-চরিত্র
গণ বিক্ষোভ
মহাবিদ্রোহের-প্রকৃতি-ও-চরিত্র
কৃষক


এরিক স্টোকস এর "The peasant and the raj" এবং "The peasant armed the indian revolt of 1857" - এই বইতে তিনি 1857 সালের বিদ্রোহকে গণবিদ্রোহ বলে উল্লেখ করেছেন| এই বই শুধুমাত্র অর্থনৈতিক ব্যাখ্যা থাকছে না, পরিবেশ-সংস্কৃতি ও মানসিকতার মধ্যে দিয়ে বিদ্রোহের কারণকে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছেন| কৃষকেরা পুরোপুরি সৈনিক হয়ে গিয়েছিল| অযোধ্যাতে যে বিদ্রোহ হয়েছিল, তা একটা গণবিদ্রোহের রূপ নিয়েছিল| অযোধ্যাতে যত সংখ্যক কৃষক ছিল, তার মধ্যে 4/3 ভাগ বিদ্রোহে যোগদান করেছিল|



প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ 

1857 সালের বিদ্রোহকে অনেকেই ভারতের প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ বলেছেন| সাভারকার, সুশোভন সরকার প্রমুখ এই বিদ্রোহকে প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ বলার পক্ষপাতী ছিলেন| ব্রিটিশ শাসনের হাত থেকে মুক্তি পেতে সমগ্র ভারতবাসী এই প্রথম জাতীয়তাবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে উঠে এবং স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষায় যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে|

অধ্যাপক রমেশ চন্দ্র মজুমদার "প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ"-এটি স্বীকার করেনি| তার মতে, এই বিদ্রোহে ভারতের সব অঞ্চলের জনসাধারণ অংশগ্রহণ করেনি| কয়েকটি ক্ষুদ্র অঞ্চলের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল| ভারতের বেশ কিছু রাজা বিদ্রোহ দমনে ইংরেজদের সাহায্য করেন| শিখ, রাজপুত, মারাঠা প্রভৃতি জাতিসমূহ ইংরেজদের পক্ষে ছিল| শিক্ষিত বাঙালি মধ্যবিত্ত সম্প্রদায় এই বিদ্রোহে পক্ষে ছিল না| সুতরাং এই বিদ্রোহকে ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম বলা যায় না|



মূল্যায়ন

1857 সালের বিদ্রোহকে প্রকৃতিগতভাবে নিছক সিপাহী বিদ্রোহ, সামন্ত বিদ্রোহ বা সনাতন বিদ্রোহ বলে অভিহিত করা ঠিক হবে না| কেবল ধর্মীয় কারণ বা এনফিল্ড রাইফেল এর জন্যই এই বিদ্রোহ সংগঠিত হয়নি| 

এই বিদ্রোহ হল মানুষের দীর্ঘদিনের পুঞ্জীভূত ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ| বিদ্রোহের অংশকারীদের অধিকাংশই ছিল সাধারণ মানুষ| নানা ত্রুটি, নানা বিদ্বেষ থাকা সত্ত্বেও এই বিদ্রোহের চরিত্রকে কখনোই অস্বীকার করা যায় না বা একে স্বাধীনতা সংগ্রাম বলল অত্যুক্তি হয় না| আসলে এই মহাবিদ্রোহ নানা জনের কাছে প্রতিভাত হয়েছে নানাভাবে|

এরিক স্টোকস বলেছেন, এই বিদ্রোহ এক সুরে বাধা ছিল না| এর মধ্যে নানা ধারা-উপধারা যেমন কৃষকদের প্রতিরোধ, তেমনি ছিল জাতীয় প্রতিরোধ| নানান তরঙ্গ ইংরেজদের বিরুদ্ধে সামরিক ভাবে একত্রিত হয়েছিল|

একথা সত্য যে, 1857 সালের বিদ্রোহ শেষ পর্যন্ত লক্ষ্য পূরণে সফলতা পায়নি| কিন্তু ভবিষ্যতে এই মহাবিদ্রোহ ভারতবাসীর মনে দেশ প্রেমের আদর্শ ও উদ্দীপনার সঞ্চার করেছিল| তাই 1857 সালের মহাবিদ্রোহ সফল না হলেও মহাবিদ্রোহের স্মৃতি ও আদর্শ ইংরেজদের পক্ষে বেশি ক্ষতিকারক হয়েছিল|


তথ্যসূত্র

  1. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "পলাশি থেকে পার্টিশন"
  2. Julian Spilsbury, "The Indian Mutiny"."
  3. G. B. Malleson, "The Indian Mutiny of 1857".

সম্পর্কিত বিষয়

  1. দাদাভাই নওরোজি মতে, ব্রিটিশ ভারতের জাতীয় আয় নির্ণয় (আরো পড়ুন)
  2. অর্থনৈতিক জাতীয়তাবাদ বা Economic Nationalism  (আরো পড়ুন)
  3. সম্পদের বহির্গমন তত্ত্ব এবং এটি কিভাবে বাংলার অর্থনীতিকে প্রভাবিত করেছিল  (আরো পড়ুন)
  4. ১৮৫৮ সালের ভারত শাসন আইন  (আরো পড়ুন)
সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................

    Note:- Please share your comment for this post :

    :

    --Click here:--

    .

    Share this post with your friends

    please like the FB page and support us

    Previous
    Next Post »

    Top popular posts