ঊনবিংশ শতকে নারী সংক্রান্ত সমস্যা

উনিশ শতকের বাংলায় ধর্মীয় এবং সমাজ সংস্কার আন্দোলনের ক্ষেত্রে নারী মুক্তি প্রশ্নটি, শিক্ষিত মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে খুব সামান্য ভাবে আলোচনা করা হয়েছিল| রামমোহন রায় এবং সতী আন্দোলন, বিদ্যাসাগরের বিধবা বিবাহ আন্দোলন এবং কুলীন ব্রাহ্মণদের বহুবিবাহ বিরোধী আন্দোলন, নব্যবঙ্গদের অতি আধুনিকতার এবং ব্রাহ্ম আন্দোলন প্রভৃতি বিশেষভাবে নারী সংক্রান্ত বিষয়টির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল|

এই শতকের শেষের দিকে চিরাচরিত মতাদর্শ, মূল্যবোধ সম্পর্কে সংঘাত সমকালীন সাহিত্য, বিশেষ করে বঙ্কিমচন্দ্রের বিষবৃক্ষ এবং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চোখের বালি এবং  গোরাতে ব্যক্ত হয়| এছাড়া বাংলার নবজাগরনে উপর রচিত অসংখ্য রচনার মধ্য দিয়ে নারী মুক্তি বিষয়টির ঝলক দেখা যায়| উনিশ শতকে বৌদ্ধিক শ্রেণী নারী মুক্তি সংক্রান্ত প্রশ্নটিকে একটি নির্দিষ্ট সময় তুলে ধরে|

উনবিংশ-শতকে-নারী-সংক্রান্ত-বিষয়



পাশ্চাত্য প্রভাব এবং ইংরেজ ঘরনায় ইংরেজি শিক্ষিত গোষ্ঠী প্রকৃতপক্ষে ভারতে আধুনিকতার বিকাশের সাহায্য করেছিল, তবে এটি একটা সাধারণ ব্যাখ্যা| যদিও মনে রাখতে হবে যে- ইংরেজি পাঠ্যপুস্তক, সাহিত্য  এবং কোন কোন ক্ষেত্রে বিদেশ ভারতীয়দের মধ্যে বহিঃবিশ্ব সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে তুলতে সাহায্য করেছিল| বিভিন্ন কবিতা এবং উপন্যাসগুলিতে রোমান্টিক প্রেম ও বিধবাদের দাহ না করার কথা এবং বহু বিবাহের বিরুদ্ধে তুলে ধরা হয়েছিল| জন স্টুয়ার্ট মিলের নারী বিষয়ে রচনায় বাংলার বহু পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল, এছাড়া মিশনারিদের প্রচেষ্টার কথাও উল্লেখ করতে হয়| 

উনিশ শতকে ইউরোপে মেয়েদের সমস্যা নিয়ে কার্যকলাপ সম্পর্কে ভারতীয় বুদ্ধিজীবী শ্রেণী বেশ কিছুটা সচেতন হয়ে উঠেছিল| খ্রিস্টান মিশনারীরা মূর্তি পূজা এবং বহু দেব-দেবীর আরধনা, জাত-পাত প্রভৃতি বিরুদ্ধে তীব্র প্রচার এবং নিম্ন জাতিভুক্ত মানুষ ও উপজাতিদের মধ্যে তাদের কাজ নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ছিল| রামমোহনের সময় থেকে 1870 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বেশিরভাগ দেশাত্মবোধক উদারনৈতিক আন্দোলন ছিল পুরুষ প্রভাবিত|


উনবিংশ শতকে আমরা দেখতে পেলাম নারী সংক্রান্ত প্রশ্নটি আলোচনার মধ্যে সামান্য অংশে স্থান পেয়েছে| একথা সত্য যে, বিক্ষিপ্তভাবে নারী আন্দোলনের কিছুটা উদাহরণ বাংলাদেশ পাওয়া গেলেও মেয়েরা ছিল অধিকাংশ ক্ষেত্রে পুরুষ পরিচালিত এবং সংস্কার আন্দোলনের পরোক্ষ ভূমিকাতে| 1935 খ্রিস্টাব্দে 28 শে মার্চ সমাচার দর্পণ একটি চিঠি প্রকাশ করে- তাতে দেখা যায়, চুঁচুড়ায় নারী শিক্ষা ও বহুবিবাহ নিষিদ্ধ এবং নিজেদের পছন্দের মত বিবাহের কথা বলে|

মহেশচন্দ্র দে তাঁর প্রবন্ধে নারী সংক্রান্ত বিষয়ে উনিশ শতকে তাদের সচেতনতার কথা উল্লেখ করেছেন| মহেশচন্দ্র বাল্যবিবাহ,  বহুবিবাহ, বিধবা বিবাহ প্রভৃতির সমালোচনা করেছেন| রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর বহু কবিতাতে স্ত্রীকে স্বামী যে পুতুল হিসেবে দেখেছেন, তা তিনি ফুটিয়ে তুলেছেন| উনিশ শতকের সমাজ সংস্কারক ছিলেন পিতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় লালিত-পালিত| সেই কারণে তাদের সমাজ সংস্কারমূলক কাজগুলি ছিল অধিকাংশ সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন|

উনবিংশ-শতকে-নারী-সংক্রান্ত-বিষয়
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর 


উনবিংশ-শতকে-নারী-সংক্রান্ত-বিষয়
গান্ধীজী



আবার একদিকে কৃষ্ণমোহন ব্যানার্জির নাটকে ব্রাহ্ম আন্দোলনের শিক্ষার প্রচেষ্টা এবং তার সীমাবদ্ধতা, স্ত্রীদিগের মুক্তি ও নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে সমালোচনা করেছেন| তার মধ্যে সংস্কার আন্দোলনগুলি ছিল, বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নিজেদের আত্মীয়-স্বজন কেন্দ্রিক| উনবিংশ শতকে মধ্যবিত্ত বুদ্ধিজীবী সমাজ সংস্কারকদের নারী সংক্রান্ত প্রশ্ন এবং সমাজ সংস্কারের বিষয়টি গুরুত্ব হ্রাস পাই জাতীয়তাবাদের উদ্ভবের সাথে সাথে| জাতীয়তাবাদে ধর্মীয় প্রভাব বৃদ্ধি , গান্ধীজীর ভূমিকা, আত্ম-নিবেদনের ডাক এবং অনশন প্রভৃতি চিরাচরিত হিন্দু সম্প্রদায়কে অনেকাংশই এগিয়ে দিয়েছিল| এরফলে রক্ষণশীল পরিবারের মেয়েরা রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে শুরু করে|

উনবিংশ শতকের সংস্কার আন্দোলনের প্রকৃতি বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, এই সময় সংস্কার আন্দোলনের  উদ্যম এসেছিল উচ্চ শিক্ষিত ভদ্রলোকের কাছ থেকে|  তাই সংস্কার আন্দোলন আবদ্ধ ছিল উচ্চশ্রেণীর সামাজিক ত্রুটিগুলিকে দূর করার ক্ষেত্রে, যেমন- সতীদাহ, বিধবা বিবাহ, কুলীন প্রথা প্রভৃতি| এই সমাজ সংস্কারের আরেকটি রূপ ছিল যে, শাস্ত্র থেকে উদ্বৃত্ত নিয়ে মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা, তবে এটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল|

এই সময় সংস্কার আন্দোলনের কতগুলি দিক ছিল, যেমন- প্রথম প্রজন্মের সংস্কারকরা তাদের রক্তের সম্পর্ক ভঙ্গ করেছিল, যৌথ পরিবার থেকে একান্নবর্তী পরিবারে সূত্রপাত হয়েছিল| এটা মনে রাখতে হবে যে, প্রথমে তাদের পক্ষে পিতৃতান্ত্রিক কর্তৃত্বকে সম্পূর্ণভাবে উপেক্ষা করা, ধর্ম এবং সামাজিক নিয়মকে ছিন্ন করা সম্ভব ছিল না|

উনবিংশ-শতকে-নারী-সংক্রান্ত-বিষয়
কৃষক



আবার একদিকে শিবনাথ শাস্ত্রী ছিলেন ব্রাহ্ম আন্দোলনের প্রকৃত প্রগতিশীল নেতা|  তিনি লিঙ্গ এবং বর্ণবৈষম্য বিরোধী কথা বলেন, পাশাপাশি তিনি ইংরেজ মহিলাদের শৃঙ্খলা পূর্ণ স্বাধীনতার কথা উল্লেখ করেন| তবে মনে রাখতে হবে, শ্রমিক-কৃষক এবং নিম্নবর্ণের মানুষদের মধ্যে সংস্কারের প্রচেষ্টা ছিল খুবই কম, দুই-একটা ক্ষেত্র বাদ দিয়ে উদাহরণ হিসেবে ব্যানার্জি কথা উল্লেখ করা যায়|
   
উনবিংশ শতকের সাহিত্য অংশ পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, কোন কোন ক্ষেত্রে নারী শক্তির ঝলক দেখা যায়, যেমন-মধুসূদনের মেঘনাদবধ কাব্যে  প্রমীলা চরিত্র, বঙ্কিমচন্দ্রের  বিভিন্ন নারীর চরিত্র প্রভৃতি| 

আলোচনা শেষে আমরা বলতে পারি, বিংশ শতকের নারী সংক্রান্ত প্রশ্নটি উনবিংশ শতকের ধর্ম ভেদ করে অধিকাংশ উজ্জ্বল হয়ে উঠেছিল|


সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|

              ......................................................

Your Reaction ?

Oldest