আওরঙ্গজেব বা ঔরঙ্গজেবের দাক্ষিণাত্য নীতি

আওরঙ্গজেব বা ঔরঙ্গজেবের দাক্ষিণাত্য নীতি পূর্ববর্তী সম্রাটদের দাক্ষিণাত্য সাম্রাজ্য বিস্তারের নীতির পুনরাবৃত্তি বলা যেতে পারে| দাক্ষিণাত্যের শাসনকর্তা নিযুক্ত থাকার সময়ে আওরঙ্গজেব গোলকুন্ডা ও বিজাপুর রাজ্য দুটি মুঘল সাম্রাজ্যভুক্ত করার উপক্রম করেছিলেন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি সাফল্য পাননি|

এরপর রাজত্বকালে প্রথমার্ধে তিনি উত্তর ভারতের বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকায় দাক্ষিণাত্যের দিকে দৃষ্টি প্রদান করার মত সময় তার ছিল না| শিবাজীর নেতৃত্বে মারাঠা জাতীয় ক্ষমতা বৃদ্ধি দাক্ষিণাত্যের রাজনীতির ক্ষেত্রে এক নতুন পরিস্থিতির সৃষ্টি করে| এই অবস্থাই আওরঙ্গজেব নিজেই দাক্ষিণাত্যের রাজনীতি নিয়ন্ত্রিত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন|

আওরঙ্গজেব-বা-ঔরঙ্গজেবের-দাক্ষিণাত্য-নীতি
মুঘল সাম্রাজ্যের মানচিত্র
Author- Santosh.mbahrm
Date- 26 September 2015
Source- wikipedia (check here)
License- GNU Free Documentation License



রাজস্বের শেষ 26 বছর সম্রাটের সকল শক্তি গোলকুন্ডা ও বিজাপুর বিলুপ্তির সাধন করতে এবং মারাঠাদের ধ্বংস সাধন করতে নিয়োজিত হয়| গোলকুন্ডা ও বিজাপুরের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল-
  1.  উভয় ছিল শিয়া রাষ্ট্র, সুতরাং সুন্নি মুঘল সাম্রাজ্যের পরম শত্রু|
  2. চুক্তি অনুযায়ী তাদের কর বাকি ছিল| 
  3. তারা দিল্লির মুঘল সম্রাটকে উপেক্ষা করে পারস্যের সম্রাটের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করত ইত্যাদি|

বিজাপুরের পতন

1784 খ্রিস্টাব্দে যুবরাজ মুয়াজ্জেম আক্রমণ করার সুযোগ পেয়েছিল| কিন্তু তিনি যুদ্ধ না করে বিজয়পুরের সুলতানের সঙ্গে সন্ধি করেন| 1785 খ্রিস্টাব্দে আওরঙ্গজেব বিজয়পুরের সুলতানের কাছে একটি ফরমান পাঠিয়ে সুলতান সাবাজ খানের পদচ্যুতি এবং 5-6 হাজার অশ্বারোহী দাবি করে|

কিন্তু সুলতান সম্রাটের দাবি মেনে নেওয়ার পরিবর্তে বিজাপুর রাজ্যে যেসকল স্থানে মুঘলরা ইতিপূর্বে দখল করেছিল, সেইগুলি ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানান| এই অবস্থায় 1686 খ্রিস্টাব্দে আওরঙ্গজেব নিজেই বিজাপুরের সুলতান আদিন শাহকে বন্দী করেন|


আওরঙ্গজেব-বা-ঔরঙ্গজেবের-দাক্ষিণাত্য-নীতি

           যুদ্ধ পতাকা, সাম্রাজ্য সীল, জাতীয় পতাকা

                        Author- Santosh.mbahrm
                        Date- 26 September 2015
                Source- wikipedia (check here)
       License- GNU Free Documentation License





গোলকুন্ডার পতন

বিজয়পুরের পর গোলকুন্ডার দিকে দৃষ্টি পড়ে| গোলকুন্ডার বিরুদ্ধে সম্রাটের বিশেষ কতগুলি অভিযোগ ছিল, যেমন-
  1. মুসলমান প্রজাবর্গের উপর গোলকুন্ডার হিন্দু মন্ত্রীদের অত্যাচার|
  2. গোলকুন্ডার সুলতান গোপনে মুঘলদের বিরুদ্ধে শম্ভুজীকে সাহায্য করতেন|
গোলকুন্ডার সুলতান আবুল হাসান বিরক্তের সঙ্গে সম্রাটকে বাধা প্রদান করেন| আব্দুল্লা পানি নামে গোলকুন্ডার এক কর্মচারীর বিশ্বাস ঘাতকতায় গোলকুন্ডা অতি সহজে আওরঙ্গজেব দখল করে|




আওরঙ্গজেব ও মারাঠা

আওরঙ্গজেব তার দাক্ষিণাত্য অভিযানে দুটি মূল উদ্দেশ্যের মধ্যে একটি ছিল গোলকুন্ডা ও বিজাপুর দখল এবং দ্বিতীয়টি হল মারাঠা শক্তির বিরুদ্ধে অগ্রসর হওয়া| দাক্ষিণাত্যের শাসনকর্তা নিযুক্ত থাকার সময় আওরঙ্গজেব শিবাজীকে দমন করার চেষ্টা করেন| পরবর্তীতে তিনি সায়েস্তা খাঁকে শিবাজীর বিরুদ্ধে প্রেরণ করেন, কিন্তু সায়েস্তা খাঁ ব্যর্থ হয়|

আওরঙ্গজেব-বা-ঔরঙ্গজেবের-দাক্ষিণাত্য-নীতি
শিবাজীর মূর্তি


আবার আওরঙ্গজেব জয় সিংকে শিবাজীর বিরুদ্ধে প্রেরণ করেন| জয় সিং(আরো পড়ুন) এর অনুরোধে শিবাজী মুঘল দরবারে আগমন করলে শিবাজীকে নজর বন্দি করে রাখা হয়| কিন্তু কিছু দিনের মধ্যে শিবাজী নিজ বুদ্ধির জন্য সেখান থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন|

গোলকুন্ডা ও বিজাপুর বিজিত হওয়ায় আওরঙ্গজেব মারাঠাদের বিরুদ্ধে সর্বশক্তিমান হন| ইতিমধ্যে শিবাজীর পুত্র শম্ভুজী সিংহাসনে বসেন| 1689 খ্রিস্টাব্দে মুঘলদের আক্রমণে তিনি বিপর্যস্ত হন এবং বিধর্মী ও বিদ্রোহী অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে আওরঙ্গজেবের আদেশে নিহত হন|

কিন্তু আমরা ইতিহাস পাঠক হিসাবে এই কথা নিঃসন্দেহে বলতে পারি যে, এই ক্ষেত্রে আওরঙ্গজেব এক মারাত্মক ভুল করেছিলেন| এই নেতৃত্ব বিহীন মারাঠারা আওরঙ্গজেবের বিরুদ্ধে পাগলের মতো মুঘল রাজ্যে লুটপাট করতে থাকে|

অন্যদিকে আওরঙ্গজেব সর্বশক্তি দিয়ে মারাঠাদের দুর্গগুলি দখল করতে থাকে| বন্যা, মহামারী ও মারাঠাদের আক্রমণ থেকে মুঘল বাহিনীকে কোনদিনও শান্তি দেয়নি| 1703 খ্রিস্টাব্দে আওরঙ্গজেব মারাঠাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেন এবং তিনি মুঘলদের হাতে বন্দি শম্ভুজীর পুত্র শাহজী ও তার মাকে মুক্ত করতে রাজি হন| প্রকৃত পক্ষে তিনি বহু চেষ্টা করলেও মারাঠা শক্তিকে বিধ্বস্ত করতে ব্যর্থ হন|

আওরঙ্গজেব-বা-ঔরঙ্গজেবের-দাক্ষিণাত্য-নীতি
অ্যাডাম স্মিথ
Source- wikipedia (check here)
Modified- colour and background
License- creative commons


তার দাক্ষিণাত্য নীতির সম্পর্কে ঐতিহাসিকদের মধ্যে যথেষ্ট মতভেদ আছে| অ্যাডাম স্মিথ, এলফিনস্টোন প্রমুখ ঐতিহাসিকরা মনে করেন যে, গোলকুন্ডা ও বিজাপুরের বিলুপ্তি সাধন করে আওরঙ্গজেব অদূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন, তাদের মতে-
  1. গোলকুন্ডা ও বিজাপুর বিজিত হলে তাদের কর্মচ্যুত সৈনিকরা মারাঠা সেনাবাহিনীতে যোগদান করে মারাঠা শক্তিকে বৃদ্ধি করেছিল|
  2. আওরঙ্গজেবের উচিত ছিল দাক্ষিণাত্যের শিয়া রাজ্যগুলির সঙ্গে মিত্রতা স্থাপন করে মারাঠা শক্তিকে বিধ্বস্ত করা, কিন্তু আওরঙ্গজেব তা না করে খুব ভুল করেছিল|
তবে একথা সত্য যে, আওরঙ্গজেবের দাক্ষিণাত্য নীতি মুঘল সাম্রাজ্যের পক্ষে ক্ষতিকর হয়েছিল| দাক্ষিণাত্য মুঘল সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় একজনের পক্ষে সমগ্র সাম্রাজ্যের উপর দৃষ্টি রাখা সম্ভব ছিল না| দীর্ঘকাল ধরে যুদ্ধে ব্যস্ত থাকার ফলে রাজকোষ একেবারে শূন্য হয়ে পড়ে, এর ফলে চারিদিকে বিদ্রোহ ও অশান্তি দেখা দিয়েছিল|

এই সকল কারনে তার জীবন কালে মুঘল সাম্রাজ্যের বিপর্যয় আরম্ভ হয়|



তথ্যসূত্র

  1. সতীশ চন্দ্র, "মধ্যযুগে ভারত"
  2. শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, "অষ্টাদশ শতকের মুঘল সংকট ও আধুনিক ইতিহাস চিন্তা"
  3. অনিরুদ্ধ রায়, "মুঘল সাম্রাজ্যের উত্থান-পতনের ইতিহাস"

    সম্পর্কিত বিষয়

    সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|

                  ......................................................

    Ask questions :

    :

    --Click here:--

    Mock Test

    Visit our Mock Test Episodes - (click here)

    Share this post with your friends

    Need help..? send message privately.
    Previous
    Next Post »