ভক্তি আন্দোলন

দীর্ঘ তিন শত বছরের সুলতানি শাসনে ভারতের আধ্যাত্মিক ও সাংস্কৃতিক জীবনে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটে| তাই তৎকালীন হিন্দু ধর্ম ও সংস্কৃতিকে সর্বপ্রথম এক বিধর্মী ও বৈদেশিক সংস্কৃতি এসে আঘাত করে| শাসক যখন বিদেশি ও বিধর্মী, তখন মানুষের ধারণার পরিবর্তনের পাশাপাশি দুটি ধর্ম একে অপরের সংস্পর্শে আসার ফলে দুই ধর্মের মধ্যেই নানা সংস্কার ঘটে| হিন্দু ধর্মের ক্ষেত্রে এরকম এর সংস্কার ছিল ভক্তিবাদ|

ভক্তিবাদের মূলকথা হলো, "আত্মার সঙ্গে পরমাত্মার মিলন"- অর্থাৎ মানুষের সঙ্গে ঈশ্বরের মিলন| ভক্তিবাদের উদ্ভব সম্পর্কে পন্ডিত মহলে নানা মতবাদ বিদ্যমান| অধ্যাপক তারা চাঁদ, ইউসুফ হোসেন, অধ্যাপক কুরেশি প্রমুখ ঐতিহাসিকদের মতে ইসলাম থেকে হিন্দু ধর্মে ভক্তির প্রবেশ ঘটেছে| তাদের মতে ইসলামের একেশ্বরবাদ, ভ্রাতৃত্ববোধ, মানবতাবাদ ও সামাজিক সাম্যের তত্ত্ব ভক্তিবাদী প্রচারকের প্রভাবিত করেছিল|

এইসব প্রচারকরা মনে করেন যে, বহুদেব-বাদ এবং জটিল আচার-অনুষ্ঠান সর্বস্বোতা ত্যাগ করে একমাত্র ভক্তির মাধ্যমেই ঈশ্বরকে পাওয়া সম্ভব| মুসলমান সুফীসন্তদের প্রচারক ভক্তিবাদ আন্দোলন সংগঠনে সাহায্য করে| সুফিসন্তরা অতীন্দ্রিয়, ভক্তি তত্ত্ব ও নৈতিক আদর্শের উপর জোর দেন| তারা কোরানের পন্ডিতী ব্যাখ্যার অপেক্ষা আল্লাহের প্রতি ভক্তিকেই মুক্তির একমাত্র পথ বলে অভিহিত করেন| সুফীসন্তদের এই উদার দৃষ্টিভঙ্গি হিন্দু ভক্তি আন্দোলনকে অনুপ্রাণিত করে| 

অন্যদিকে ম্যাক্স ওয়েবার, গ্রিয়ারসন প্রমূখ ইউরোপীয় লেখকগণ মনে করেন, খ্রিস্টান ধর্ম থেকে একেশ্বরবাদ ও ভক্তি ধারণা এসেছে| বার্নেট প্রমুখরা এই বক্তব্যের বিরুদ্ধে আপত্তি তুলে বলেন যে, দেশীয় উপাদান গুলির মধ্যেই ভক্তি উৎস নিহিত আছে|

ভক্তি-আন্দোলন
শ্রীমদ্ভগবদগীতা

ভক্তি-আন্দোলন




বলা যায় বৈদিক সাহিত্যই ভক্তিবাদের বীজ খুঁজে পাওয়া যায়| শ্রীমদ্ভগবদগীতায় শ্রীকৃষ্ণ ভক্তিবাদের কথা বলেছেন| হিন্দু ধর্ম শাস্ত্রের মুক্তির তিনটি পথের কথা উল্লেখ আছে, যথা- জ্ঞান, ভক্তি ও কর্ম| বিষ্ণুপুরাণেও ভক্তিবাদের কথা উল্লেখিত আছে| খ্রিস্ট শতাব্দীর সূচনায় মহাযানী বৌদ্ধধর্ম ও পরবর্তীকালে সহযানী বৌদ্ধ ধর্মেও ভক্তির কথা বলা হয়েছে| প্রকৃতপক্ষে খ্রিস্ট সপ্তম থেকে দ্বাদশ শতকের মধ্যে দাক্ষিণাত্য ভক্তি আন্দোলনের সূচনা হয়| এই প্রসঙ্গে শৈব নায়নার ও বৈষ্ণব আলওয়ার সম্প্রদায়ের নাম স্মরণ করা যেতে পারে| এরা সামাজিক বৈষম্য ও জাতিভেদের বিরুদ্ধে ঈশ্বরের প্রতি প্রেম ও আদর্শকে তুলে ধরেছেন, এ-শিক্ষায় পরবর্তীকালে ভক্তি আন্দোলনের সূচনা করে|

তবে সুলতানি আমলে ভক্তি আন্দোলনের সূচনা ও ব্যাপক প্রসার লাভের পেছনে সামাজিক ও অর্থনৈতিক কারণ খুঁজে পাওয়া যায়| হিন্দু উচ্চবর্ণের লোকেরা ছিলেন জমিদার বা উচ্চপদস্থ কর্মচারী| অন্যদিকে দরিদ্র কৃষক, কারিগর ও নিম্ন বর্ণের হিন্দু মানুষেরা সামাজিক ও অর্থনৈতিক উভয় দিক থেকে ছিলেন অবহেলিত ও বঞ্চিত| হিন্দু উচ্চবর্ণের ঘৃণা, অবহেলা এবং শাসক মুসলমান সম্প্রদায়ের শোষন ও প্রলভনের স্বীকার হয়ে বহু নিম্নবর্ণের হিন্দু ইসলাম ধর্ম গ্রহণে আগ্রহী হয়ে পড়েছিল| এমত অবস্থায় ধর্মসংস্কারগণ ভক্তিবাদের প্রচার করে ধর্মীয় জটিলতা পরিহার করতে চেয়েছিলেন|





ভক্তিবাদের ধর্ম প্রচারকগণ

ভক্তি আন্দোলনের রামানুজ 

ভক্তিবাদের আদি প্রবক্তাদের অন্যতম ছিলেন রামানুজ| 1017 খ্রিস্টাব্দে দক্ষিণ ভারতের শ্রী পেরামপুদুরে রামানুজের জন্ম| রামানুজ বিশ্বাস করতেন, কর্মের দ্বারা আসক্তি ও মায়ার উদ্ভব হয়| একমাত্র ভক্তিযোগের মাধ্যমেই প্রকৃত মুক্তি লাভ সম্ভব| তিনি জাতিভেদ ও অস্পৃশ্যতা বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান|


ভক্তি আন্দোলনের রামানন্দ

চতুর্দশ শতকের প্রধান ভক্তিবাদ ধর্মগুরু ছিলেন রামানন্দ| তিনি রামানুজের ভাবধারাকে গ্রহণ করেন| তিনি ছিলেন রাম ও সীতার উপাসক| জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলের কাছে তিনি ভক্তিবাদ প্রচার করতেন| তিনি জাতিভেদ ও অস্পৃশ্যতাকে স্বীকার করতেন না| 

ঐতিহাসিক তারাচাঁদ রামানন্দকে দক্ষিণ ভারত ও উত্তর ভারতের ভক্তিবাদী আন্দোলনের সেতুবন্ধন বলে উল্লেখ করেছিলেন| বিভিন্ন বর্ণের এমনকি নিম্ন জাতির লোকেরাও তার শিষ্যত্ব গ্রহন করেছিল| তার শিষ্যদের মধ্যে প্রধান ছিলেন কবীর|



ভক্তিবাদী আন্দোলনের নানক

ভক্তিবাদের আরেক প্রধান প্রবক্তা ছিলেন গুরু নানক| তিনি 1469 খ্রিস্টাব্দে লাহোরের কাছে তালবন্দি নামক গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন| কবীরের মতোই তিনি মূর্তিপূজা, তীর্থযাত্রা, জাতিভেদ প্রথা ও ধর্মের বহিরঙ্গতার নিন্দা করতেন|

ভক্তি-আন্দোলন
শিখ ধর্মের প্রতীক



তার মতে ঈশ্বর লাভের জন্য কখনোই সন্ন্যাস অপরিহার্য নয়| সৎ ও নিরাসক্ত জীবন-যাপন এবং ঈশ্বরের প্রতি অবিচল ভক্তির মাধ্যমে গার্হস্থ্য জীবনে মোক্ষ লাভ সম্ভব| তিনি মনে করতেন, "নাম" বা ঈশ্বরের গুনোগান, "দান" বা জীবনের সেবা এবং "স্নান" বা দেহের শুদ্ধির মাধ্যমেই আধ্যাত্মিক উন্নতি সম্ভব| হিন্দু-মুসলমান উভয় সম্প্রদায়ের মানুষ তার শিষ্যত্ব গ্রহণ করেছিল| তার শিষ্যরা শিখ নামে পরিচিত|



ভক্তি আন্দোলনে শ্রী চৈতন্য

বৈষ্ণব ধর্মের প্রচারক মধ্যে শ্রীচৈতন্য ছিলেন অন্যতম| নবদ্বীপের এক সম্ভ্রান্ত ব্রাহ্মণ পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন| শৈশব থেকেই তিনি ছিলেন ধর্ম ভাবাপন্ন| 24 বছর বয়সে তিনি গৃহ ত্যাগ করে সন্ন্যাস ধর্ম গ্রহণ করেন| হিন্দু-অহিন্দু, উচ্চ-নীচ নির্বিশেষে তিনি ভক্তির আদর্শ প্রচার করেন| তাঁর মতে জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকল মানুষই আধ্যাত্মিক শক্তির অধিকারী এবং ভক্তিভাবের মধ্যেই মুক্তিলাভ সম্ভব| তাঁর অগণিত শিষ্যদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন উড়িষ্যার রাজা প্রতাপ রুদ্র দেব, রূপ সনাতন, যবন হরিদাস, শ্রীনিবাস, জীব গোস্বামী সকলেই ছিলেন|



ভক্তি আন্দোলনে মীরাবাঈ

মধ্যযুগের ভক্তিবাদের আন্দোলনের ইতিহাসে রাজপুত কূল গৌরব শিশোদীয়া রাজপরিবারে বধূ মীরাবাঈ ছিল এক উল্লেখযোগ্য নাম| অল্প বয়সে কৃষ্ণ প্রেমে মাতোয়ারা হয়ে তিনি তিনি রাজপ্রাসাদ ত্যাগ করেন| তিনি মনে করতেন, ভক্তি ও ভালোবাসা দ্বারায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে লাভ করা যায়|

ভক্তি-আন্দোলন
কৃষ্ণ


সঙ্গীতের মাধ্যমে তিনি ঈশ্বরের উদ্দেশ্যে ভক্তি-অর্ঘ নিবেদন করতেন| "মীরার ভজন" নামে পরিচিত তার ভক্তিমূলক গানগুলি আজও ভারতীয় সাহিত্য ও সঙ্গীতের মূল্যবান সম্পদ|



ভক্তি আন্দোলনে কবীর

মধ্যযুগের ভক্তি আন্দোলনে যাদের নাম সবচেয়ে বেশি স্মরণীয় তাদের মধ্যে কবীর ছিলেন অন্যতম (আনু: 1440-1518 খ্রিস্টাব্দ)| কবীরের বাল্য জীবন সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায় না| কিংবদন্তী অনুযায়ী কবীর ছিলেন এক ব্রাহ্মণ বিধবার সন্তান| মা কর্তৃক পরিত্যক্ত হয়ে তিনি নিরু নামে এক মুসলমান তাঁতির ঘরে পালিত হয়| গুরু রামানন্দের কাছে ভক্তি মন্ত্রে দীক্ষিত হবার পর তিনি ধর্মপ্রচারে ব্রত হন|

বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে কোন পার্থক্য তিনি স্বীকার করতেন না| তিনি বিশ্বাস করতেন শাস্ত্রীয় বিধান, ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান, তীর্থযাত্রা, পুণ্য স্নান, শাস্ত্র পাঠ বা জাতিভেদ নয়- কেবলমাত্র মনের পবিত্রতা ও আন্তরিকতার মাধ্যমে ভক্তির সাহায্যেই প্রকৃত ধর্ম লাভ সম্ভব| তার মতে, "আল্লাহ্" ও "রাম" একই ঈশ্বরের আলাদা নাম| 

হিন্দু-মুসলমান উভয় ধর্মের মানুষ কবীরের শিষ্যত্ব গ্রহণ করেছিল এবং তারা কবীর পন্থী নামে পরিচিত হন| দুই লাইনের একেকটি শুল্ক বা দোঁহার মাধ্যমে কবীর অন্তত সহজ-সরলভাবে তার বক্তব্য প্রচার করতেন| কেবলমাত্র আধ্যাত্মিক সম্পদ হিসাবেই নয়- দোঁহাগুলি ছিল হিন্দি সাহিত্যের অমূল্য সম্পদ|





ভক্তি আন্দোলনের প্রভাব ও ফলাফল

ভারতীয় জনজীবনে ভক্তিবাদ সুগভীর প্রভাব বিস্তার করেছিল| কেবলমাত্র সমকালীন ধর্মীয় জীবনে নয়- সমকালীন ও পরবর্তী যুগের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক জীবনে ভক্তিবাদের প্রভাব ছিল ব্যাপক|
  1. দীর্ঘদিন ধরে যে হিন্দু-মুসলমান বিভেদ চলছিল ভক্তিবাদের প্রভাবে তার তীব্রতা বহুলাংশে হ্রাস পায় এবং উভয় সম্প্রদায়ের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপিত হতে থাকে| এই কথা নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে যে, পরবর্তীকালে সম্রাট আকবরের উদারনৈতিক নীতির ভিত্তিক এই যুগেই রচিত হয়েছিল|
  2. ভক্তি আন্দোলনের ফলে ভক্তি সমাজে ঐক্য ও সংহতি বৃদ্ধি পায়| অধ্যাপক আশীর্বাদী লাল শ্রীবাস্তব মনে করেন, ভক্তি আন্দোলনের লক্ষ্য ছিল হিন্দু ধর্মের সংস্কার করে একটি সহজ-সরল রূপ দেওয়া যাতে ইসলাম ধর্মের সাম্যবাদী আহ্বান থেকে নিম্নবর্ণের হিন্দুদের সরিয়ে আনা যায়| বর্ণভেদ প্রথার বিরোধিতা করে সামাজিক সাম্যের আদর্শ প্রচার করে ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের পরিবর্তে সাধন/সহজ পথে ঈশ্বর লাভের তত্ত্ব প্রচার করে ভক্তি মার্গের সাধকরা নিম্ন বর্ণের মানুষের কাছে হিন্দুধর্মকে জনপ্রিয় করতে পেরেছিলেন|
  3. ভক্তি মার্গের সাধকরা স্থানীয় ভাষাতে তাদের উপদেশ দান করতেন, ফলে আঞ্চলিক ভাষাগুলি নবীন মর্যাদায় ভূষিত হয়, বাংলার বৈষ্ণব কবিরা বাংলা ভাষাকে নতুন রূপ দান করেন| নামদেব ও একনাথ এর পদাবলী মারাঠি সাহিত্যকে, কবীরের দোঁহাগুলি হিন্দি সাহিত্যকে এবং নানকের উপদেশ বলী পাঞ্জাবি ভাষা ও গুরুমুখী লিপিকে সমৃদ্ধ করে| 
সর্বশেষে উল্লেখ করা যেতে পারে, ভক্তিবাদীরা ধর্মপালনের নারী-পুরুষ অবাধ স্বাধীনতা নারীদের ছিল বলে তাদের সামাজিক মর্যাদা পূর্বের তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পেয়েছিল| মহাদেব গোবিন্দ রানাডে মনে করতেন, ভক্তিবাদের প্রভাবে চিন্তা ও কাজের ভারতবাসী অগ্রগতি ও উন্নত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পেরেছিল|




তথ্যসূত্র

  1. অধ্যাপক গোপালকৃষ্ণ পাহাড়ী, "মধ্যকালীন ভারত"
  2. সতীশ চন্দ্র, "মধ্যযুগে ভারত"
  3. Shahabuddin Iraqi, "Bhakti Movement in Medieval India: Social & Political Perspectives".

    সম্পর্কিত বিষয়

    সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                  ......................................................


    Need Help..?

    Ask Questions - (click here)

    Mock Test

    Visit our Mock Test Episodes - (click here)

    Share this post with your friends

    Like and support our Facebook page
    Previous
    Next Post »