সংস্কৃতির গুরুত্ব , বৈশিষ্ট্য ও ধারণা সমূহ

বলতে আমরা সাধারণত সমাজে জনগোষ্ঠীর একগুচ্ছ রীতি-নীতি, ধ্যান-ধারণা ও সামাজিক আচরণকে বুঝে থাকি| ভৌগলিক সীমান্তের দরুন সাংস্কৃতিক পার্থক্য ঘটে থাকে| কোন একটি বিশেষ সংস্কৃতির ক্ষেত্রে ভাষা, বর্ণ, খাদ্যাভাস, সামাজিক আইন-কানুন, সঙ্গীত এবং শিল্পকলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে|

সংস্কৃতির-গুরুত্ব-বৈশিষ্ট্য-ও-ধারণা-সমূহ



স্মরণাতীত কাল থেকে বিভিন্ন জনগোষ্ঠী তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি বহন করে নিয়ে আসে এবং সময়ের সাথে সাথে বিভিন্ন প্রজন্মের হাতে তা হস্তান্তরিত হয়েছে| সংস্কৃতির মাধ্যমে মানুষ একে অপরের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে থাকে এবং একই সাংস্কৃতিক পটভূমিতে একটি জনগোষ্ঠী গড়ে তোলে| 

বিবর্তনের সাথে অভ্যস্ত হয়ে যাওয়া জনগোষ্ঠীর পরিচায়ক রূপে সেই জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতিকে চিহ্নিত করা হয়| সাংস্কৃতিক পরিণয় মাধ্যমেই আমরা পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে প্রাপ্ত বিভিন্ন গুণাবলী অর্জন ও ধারণ করে থাকি, যা জীবনের অর্থ চিহ্নিত করে| সাংস্কৃতিক বহনের মাধ্যমেই কোন নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য সমূহ ফুটে উঠে|


বর্তমান সময়ে সংস্কৃতির ধারণা

সংস্কৃতির ধারণাটি বর্তমান সময়ে পরিপ্রেক্ষিতে অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক ও গুরুত্বপূর্ণ রূপে প্রতিভাত হয়েছে| আমাদের সংস্কৃতির মাধ্যমেই আমরা পূর্ব-পুরুষদের সম্পর্কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আহরণ করে থাকি| সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হল কোন ইতিহাস বইয়ের মতো, যা সকলের গুরুত্ব সহকারে পাঠ করা উচিত|

মানব জীবন নশ্বর হলো এর সাংস্কৃতিক দিকগুলি অমর| পূর্ব পুরুষদের মধ্যে প্রচলিত বিভিন্ন সাংস্কৃতিক গুণাবলী পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যেও আপন নিয়মে পরিবাহিত হয়| যখন আমরা আমাদের সাংস্কৃতিক উৎস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করি এবং যেগুলিকে অনুসরণ করি, তা আমাদের নিজেদের জানতে অনেক বেশি সাহায্য করে|

আত্মউপলব্ধির মাধ্যমে আমরা জনগোষ্ঠী হিসেবে নিজেদের উৎস ও গুণাবলী গুলির মধ্যে আরও বেশি মাত্রায় সংযোগ স্থাপন করতে পারি| এইভাবে সাংস্কৃতিক অভ্যাস সমূহের মধ্য দিয়ে আমাদের আত্ম সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি পায়, পাশাপাশি নিজস্ব সংস্কৃতির ধারক ও বাহক রূপে আমাদের মধ্যে গর্ব অনুভূত হয়|

সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য সমূহ

কোন জনগোষ্ঠী যখন তাদের সংস্কৃতি সম্পর্কে অত্যন্ত সচেতন থাকে ও সেই বিষয়ে এক গভীরতা অর্জন করে, তখন সেই জনগোষ্ঠীর মধ্যেই তাদের বিবর্তনের সম্পর্কে এক জ্ঞানদীপ্তির সঞ্চার হয়|

এইভাবে দেখা যায় যে, বিভিন্ন সংস্কৃতি সম্পর্কে অধ্যায়ন করলে তা বিশেষ আগ্রহ সঞ্চয় করে এবং আমাদের অতীত সম্পর্কে জ্ঞানের সঞ্চার করে| পাশাপাশি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে যে সন্দেহগুলি আমাদের ভিতরে রয়েছে তা নিরসনেও সাহায্য করে|

একটি সংস্কৃতিকে অনুসরণ করলে সেই সংস্কৃতির অভ্যন্তরে থাকা নৈতিক মূল্যবোধ সমূহ আমাদের মধ্য সঞ্চালিত হয়| প্রত্যেক সংস্কৃতিরই নিজস্ব কিছু ধ্যান-ধারণা ও বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা মানব জীবনকে আরও সমৃদ্ধ করে তুলে| এর ফলে বহুমুখী সমাজের মানুষ একে অপরের সাথে দায়িত্বশীল হয়ে সহাবস্থানের সক্ষম হয়|


সাংস্কৃতিক ধারণা সমূহ

সাংস্কৃতিক ধারণা সমূহ মানব জীবনকে শৃঙ্খলা পলায়ন করে তুলে| প্রতিটি সংস্কৃতির নিজস্ব নিয়ম-কানুন রয়েছে, যা অনুশীলনের মাধ্যমে এক শান্তিপূর্ণ জীবন ধারণ সম্ভব| এই সকল নিয়ম কানুনগুলি নির্দিষ্ট কারণের পরিপ্রেক্ষিতে তৈরি করা হয়েছিল এবং তা যথাযথভাবে মেনে চলা প্রতিটি মানুষেরই কর্তব্য|

সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সমূহকে অবহেলা করা অবিবেচকরূপে পরিগণিত হয়| সংস্কৃতির বিভিন্ন দিকগুলিকে বিছদে পর্যালোচনা করলে আমাদের মধ্যে জ্ঞানের বৃদ্ধি ঘটে| পাশাপাশি সংস্কৃতি থেকে আমরা এই শিক্ষা পাই যে, বিশ্বের অন্যান্য সংস্কৃতির সঙ্গে কিভাবে সহাবস্থান করতে হয়|

আর অন্যভাবে বলা হয় যে, সাংস্কৃতিক শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্য হলো জীবনের শান্তির প্রচেষ্টা| প্রত্যেকের প্রতি সম্মান প্রদর্শনও সাংস্কৃতিক শিক্ষার একটি অঙ্গ|

সাংস্কৃতিক অনুশীলনের মাধ্যমেই মানুষ জীবনের মূল অনুধাবন করতে পারে| সাংস্কৃতিক ধারণাগুলি পূর্ব-পুরুষদের দ্বারা রচিত হলেও তা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে জীবনে সহজভাবে বাঁচার এক সুরক্ষা কবচ হিসেবে পরিগণিত হয়েছে| পাশাপাশি সাংস্কৃতিক ধারণাগুলির মধ্য দিয়েই মানুষ নিজেকে আরও দায়িত্বশীল করে তুলেছে|


উপসংহার

উপরোক্ত আলোচনা থেকে আমরা পরিশেষে বলতে পারি যে, সংস্কৃতিহীন মানবজীবন পশুর জীবনের সঙ্গে তুলনীয়| আমাদের সংস্কৃতি ও সমাজ দায়িত্বশীল মানুষ হিসেবে আমাদের তুলতে সাহায্য করে| কোন জাতি গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তার সাংস্কৃতিক কার্যাবলীর মধ্য দিয়ে ফুটে ওঠে| সাংস্কৃতিক গুণাবলীকে ধ্বংস করা কখনোই কাম্য নয়|


তথ্যসূত্র

  1. Daniel Coyle, "The Culture Code".
  2. Devdutt Pattanaik, "Culture: 50 Insights from Mythology".

সম্পর্কিত বিষয়

  1. ভারত ছাড়ো আন্দোলনের পটভূমি (আরো পড়ুন)
  2. ক্রিপস মিশন ব্যর্থতার কারণ (আরো পড়ুন)
  3. সম্পদের বহির্গমন তত্ত্ব এবং এটি কিভাবে বাংলার অর্থনীতিকে প্রভাবিত করেছিল  (আরো পড়ুন)
সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ| আশাকরি আমাদের এই পোস্টটি আপনার ভালো লাগলো| আপনার যদি এই পোস্টটি সম্বন্ধে কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন এবং অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে অপরকে জানতে সাহায্য করুন|
                     .......................................


    Note:- Please share your comment for this post :

    :

    --Click here:--

    .

    Share this post with your friends

    please like the FB page and support us

    Previous
    Next Post »

    Top popular posts